ডেস্ক: রণডঙ্কা বেজে গিয়েছে আগেই। সংসদ ভবনে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী নরেন্দ্র মোদীকে তীব্র আক্রমণ শানানোর পর এটা পরিস্কার যে, ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে শাসকদলকে এক ইঞ্চিও জমি ছাড়ছে না বিরোধী শিবির। তবে জল্পনা ছিল ২০১৯ লোকসভায় মোদী বিরোধী প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী কে হবেন? যে তালিকায় অনুমানে সর্বাগ্রে অবশ্যই ছিলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। এদিকে বাংলাবাসী আবার তাদের প্রিয় দিদিকেই দিল্লির মসনদের অধিষ্ঠাতা হিসাবে দেখতে চেয়েছেন। অন্যদিকে, উত্তরপ্রদেশের অখিলেস যাদব জানিয়ে দিয়েছিলেন এবার উত্তরপ্রদেশ থেকেই আসছেন দিল্লির প্রধানমন্ত্রী। সেই অনুমানে আবার ঘি ঢেলেছিলেন মায়াবতীও। সব মিলিয়ে মোদীর সঙ্গে টক্কর দিতে বিরোধী দলের মুখ কে হচ্ছেন তা নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে। এরই মাঝে সেই জল্পনায় নতুন ইন্ধন জোগালেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী।

মঙ্গলবার রাতে দিল্লিতে মহিলা সাংবাদিকদের এক অনুষ্ঠানে রাহুলকে এ প্রসঙ্গে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি যে উত্তর দেন তা বেশ চমকপ্রদ। বিজেপি বিরোধী আঞ্চলিক দলগুলির সঙ্গে জোট তো বটেই, জোটসঙ্গীদের মধ্যে থেকে কংগ্রেস ‌যে কোনও প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থীকে সমর্থন করতে পারে। এমনটাই ইঙ্গিত দিলেন রাহুল। মমতা বা মায়াবতীর মতো কাউকে যদি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দাড় করানো হয় তাতে কি কংগ্রেস সমর্থন দেবে। সে প্রসঙ্গে রাহুল বলেন, ‘বিজেপি বা আরএসএস বিরোধী যে কোনও প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী মুখকেই সমর্থন দেবে কংগ্রেস।’ সামনেই লোকসভা নির্বাচন সেখানে কংগ্রেসের কৌশল প্রসঙ্গে রাহুল জানান, কংগ্রেসের লক্ষ্য উত্তরপ্রদেশ এবং বিহার। এই দুই রাজ্যে বিজেপিকে যেভাবে হোক হারাতে হবে। কারণ লোকসভায় ২২ শতাংশ আসন রয়েছে এই দুটি রাজ্যে। ফলে এই রাজ্যে বিজেপি বিরোধী যে কোনও দলকে সমর্থন করবে কংগ্রেস।’

কংগ্রেস যে বিজেপিকে হারাতে যে কোনও আঞ্চলিক দলের সঙ্গে জোটবদ্ধ হতে পারে তার ইঙ্গিত আগেই দিয়েছিলেন রাহুল। সম্প্রতি কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে দলের নেতাদের স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন লোকসভায় বিজেপির দফারফা করতে যেকোনো আঞ্চলিক দলের সঙ্গে জোটের বিষয়ে তৈরি কংগ্রেস নেতারা। ফলে জোট ইস্যুতেএবং বিজেপিকে হঠাতে রাহুল যে কোনও আঞ্চলিক দল নেতা বা নেত্রীকে প্রধানমন্ত্রী করতে রাজি তা স্পষ্ট করে দিলেন এদিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here