‘চতুর্থ রেফারি আমায় অপমান করেছে, ক্ষমা চাইতে হবে’, বিস্ফোরক অভিযোগ কিবু ভিকুনার

0
55

সায়ন মজুমদার: এই মরশুমেই দলের দায়িত্ব নিয়েছেন। দল এখনো পুরোপুরি ভাবে গুছিয়ে ওঠা হয়নি বাগানের স্প্যানিশ কোচ কিবু ভিকুনা। তা সত্ত্বেও কোচ হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম টুর্নামেন্টের ফাইনালে তুলেছিলেন দলকে। ম্যাচের আগের দিন জানিয়েছিলেন নিজের জন্য নয়, ক্লাবের স্বার্থেই এই খেতাব জিততে চান কিবু। গ্রুপ পর্যায় পর্যন্ত দলের খেলা নিয়ে সমালোচনা হলেও সেমিফাইনালে দুরন্ত ফুটবল উপহার দিয়েছিলেন মোহন খেলোয়াড়রা। ফাইনালেও কিন্তু যথেষ্ট ভালো ফুটবল খেলে সবুজ মেরুন। তা সত্ত্বেও গোকুলামের ট্যাকটিকাল ফুটবলের সামনে হার মানতে হলো সবুজ মেরুনকে।

ম্যাচ শেষে খেতাব না জেতার হতাশাই ঝরে পড়লো কিবুর গলায়। ‘প্রথম থেকে মনে হচ্ছিল আজকের দিনটা আমাদের নয়। আমাদের দলের খেলোয়াড়রা ক্লান্ত ছিল। তা সত্ত্বেও আমরা যথেষ্ট ভালো খেলেছি। শেষের দিকে আমরা বেশ কিছু সুযোগ পেয়েছিলাম। কিন্তু আমার মনে হয় প্রথম গোলের ক্ষেত্রে অফসাইড ছিল। আর শেষে আমাদের নিশ্চিত পেনাল্টি থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে’, বলেন কিবু।

তিনি আরো বলেন, ‘প্রথম গোলটা ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট ছিল। এক সঙ্গে দুরান্ড কাপ আর কলকাতা লীগ খেলতে হচ্ছে। খেলোয়াড়দের ক্লান্ত হওয়াটা স্বাভাবিক । আর আমাদের ডিফেন্স নিয়ে কথা হচ্ছে। কিন্তু এটাই খেলা। আমাদের প্রতিনিয়ত উন্নতি করতে হবে। গোকুলামের মার্কাস ১১টি গোল করেছে। আজ ওরা আমাদের ডিফেন্সের থেকে ভালো খেলেছে। তবে আমি বলবো আমার দল আগের থেকে ভালো খেলছে। এটাই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ‘

এছাড়া সাংবাদিক সম্মেলনে এসে রেফারিং নিয়েও ক্ষোভ উগরে দেন তিনি। ‘ রেফারিং নিয়ে আমি সাধারণত খুব বেশি কিছু বলিনা। কিন্তু আজ আমি খুব হতাশ। নিশ্চিত পেনাল্টি থেকে আমাদের বঞ্চিত করা হয়েছে। সেটা নিয়ে আমি প্রতিবাদ করায় চতুর্থ রেফারি আমায় অপমান করেছেন। আমি দুরান্ড কমিটিকে জানিয়েছি ওনাকে ক্ষমা চাইতে হবে। ওনার ঐরকম ব্যবহার কখনোই মেনে নেওয়া যায় না’, বলেন বাগান কোচ।

অন্যদিকে, আর্জেন্টিনার জাতীয় দলের জার্সি নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে এসেছিলেন গোকুলাম ভ্যালেরা। এদিন ম্যাচের সময় গ্যালারি থেকে পড়ে আহত হন এক মোহন সমর্থক। এসেই তার দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন তিনি। ‘আমাদের ফিজিক্যাল ট্রেনিং ভালো হয়েছে। তাই হয়তো আমার ভালো খেলতে পেরেছি। এর পর আই লীগ। সেখানে আমরা কেমন খেলবো তা নির্ভর করছে খেলোয়াড়রা কতটা উন্নতি করতে তার ওপর। এই ম্যাচে আমরা বেশ কিছু ভুল করেছি। তাও আমি আমার দলের খেলায় আমি গর্বিত’, বলেন তিনি।

সংবাদিক সম্মেলনে এসে পূর্বের কথা মতো বিখ্যাত ‘চ্যাম্পিয়ন ডান্স’ করে দেখান টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোলদাতা মার্কাস। ‘আমি অনেক দূর থেকে এখানে এসেছি। আমার লক্ষ্যই দলকে চ্যাম্পিয়ন করা। পরপর দুই ম্যাচে ইস্টবেঙ্গল আর মোহনবাগানকে হারিয়েছি। এখন গোকুলামও অনেক বড় দল। আই লিগেও আমরা কড়া টক্কর দেব’, হুঙ্কার মার্কাসের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here