kolkata news

নিজস্ব প্রতিনিধি, মেদিনীপুর: রাজ্যজুড়ে এনআরসি এবং নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে পরিস্থিতি যখন উত্তাল, তখন তৃণমূলের পক্ষ থেকে সেই আন্দোলনের রাশ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে জেলাজুড়ে সংগঠিত ভাবে তা ছড়ানোর উদ্যোগ শুরু হল। এই লক্ষ্যে শনিবার বিকেলে তৃণমূলের জেলার একটি কোর কমিটির প্রস্তুতি বৈঠক হয়েছে মেদিনীপুর শহরে। দলের পক্ষ থেকে শনিবার সন্ধ্যায় একটি সাংবাদিক সম্মেলন করে বলা হয়, জেলাজুড়ে মানুষকে বোঝাব এই দুটি কালাকানুন সম্পর্কে। যা সমস্ত সম্প্রদায়কেই ক্ষতিগ্রস্ত করবে। তবে অহিংস আন্দোলনের পথে সেই পর্ব শুরু হবে।

পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা জুড়ে ইতিমধ্যেই এনআরসি বিরোধী আন্দোলন শুরু হয়েছে তৃণমূলের পক্ষ থেকে। দলের নেতাদের নির্দেশ দেওয়ার আগেই বিক্ষিপ্ত বিচ্ছিন্ন ভাবে এই আন্দোলন শুরু হয়েছে। কোথাও ভাঙচুর করা না হলেও রাস্তা অবরোধ করে, টায়ার জ্বালিয়ে উত্তেজনাপূর্ণ প্রতিবাদ-বিক্ষোভ জেলার বিভিন্ন জায়গায় দেখা দিয়েছে গত তিনদিন ধরে। তৃণমূলের পতাকা হাতে নিয়েই এই আন্দোলন দেখা দিয়েছে। কিন্তু সেই আন্দোলন যাতে হিংসাত্মক রূপ নিয়ে দলের ক্ষতি না করতে পারে, তাই দ্রুত তার নিয়ন্ত্রণে আনার উদ্যোগ নিল জেলা তৃণমূল।

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে শনিবার বিকেলে দলের পক্ষ থেকে একটি কোর কমিটির বৈঠক হয় মেদিনীপুর শহরে। যেখানে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার সমস্ত বিধায়ক ও জেলা নেতারা ছিলেন। বৈঠক শেষে সাংবাদিক সম্মেলন করে তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি বলেন, এই আইন দ্বারা বিজেপির গুটি কয়েক নেতা ছাড়া কারও কোনও অধিকার সুরক্ষিত হবে না। এর প্রতিবাদে আমাদের তুমুল গণআন্দোলন কয়েক দিন ধরেই চলছে। নেত্রীর নির্দেশে আগামীকাল আমাদের জেলার আন্দোলন বিশেষভাবে শুরু হবে। যেখানে জেলার পর্যবেক্ষক শুভেন্দু অধিকারী থাকবেন। এখান থেকেই সারা জেলার অঞ্চল এবং ব্লক ভিত্তিক সমস্ত স্তরে আন্দোলন ছড়িয়ে দেব। তবে সমস্ত স্তরে নির্দেশ দিয়েছি যেখানে ধ্বংসাত্মক আকারে আন্দোলন চলছে তা সংযত করুন। আন্দোলনকে গঠনমূলক পর্যায়ে রাখতে হবে। সে জন্যই আমাদের আন্দোলনে অংশ নেওয়া প্রয়োজন বলে আমরা মনে করছি।’

অজিত মাইতি আরও বলেন, ‘বিচ্ছিন্ন আন্দোলন বন্ধ হবে, যারা যারা বিচ্ছিন্ন আন্দোলনে মদত জোগাচ্ছিলেন তাদের আবেদন করছি, প্রতিবাদ করুন তা সংযত ও মার্জিত ভাবে। কোথাও কোনও রকম অবরোধ আন্দোলন তৃণমূল চাইছে না। কোথাও কোনও রাস্তা অবরুদ্ধ না করে জেলা ব্লক অঞ্চলস্তরে পরপর তিনদিন ধরে অহিংস আন্দোলন করুন। কনভেনশন করে নাগরিকদের বোঝান, এই আইনের ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here