ডেস্ক : সবে দুর্গাপুজো পার হয়েছে। এবার আসন্ন কালিপুজোর আগে চাঁদা জুলুম বাজদের উৎপাত আরও একবার মাথা চড়া দিয়ে উঠতে শুরু করছে। আর চাঁদা দিতে অস্বীকার করলেই রীতিমতো নিজেদের ফর্মে নেমে জুলুম বাজি শুরু করে দিয়েছে চাঁদা আদায়কারিরা। বৃহস্পতিবার রাতেও চাঁদা আদায় নিয়ে দৌরাত্ব চোখে পড়ল দমদমে। দক্ষিণ দমদম পুরসভার নতুন বাজারে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে আসন্ন কালীপুজো উপলক্ষ্যে এক নয় দুই নয় প্রায় ৪০ হাজার টাকা চেয়ে বসেছে পুজো কমিটির সদস্যরা।

বাজারের ১০-১২টি দোকানের কারও কাছে ৫, কারও কাছে ১০, আবার কারও কাছে ৪০ হাজার টাকা চাওয়া হয় স্থানীয় একটি কালীপুজো কমিটির তরফে। এত বড় অঙ্কের টাকা দিতে অস্বীকার করায় সকালে দোকান খুলতে এসে ব্যবসায়ীদের চোখ ছানা বড়া হওয়ার জোগাড়। তারা দেখেন দোকানে তালা লাগানো রয়েছে। কোনও কোনও দোকান আবার সিল করে দেওয়া হয়েছে। এর প্রতিবাদেই বৃহস্পতিবার পথ অবরোধ করেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। দমদম থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে এলাকায় চাঁদার জুলুম বেড়ে গিয়েছে এই অভিযোগ তুলে পুলিশের কাছেই নিজেদের ক্ষোভ উগরে দেন ব্যবসায়ীরা।

এদিন রাতে রবীন্দ্রনগর নতুন বাজার সোশাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির তরফে ব্যবসায়ীদের কাছে নির্ধারিত অঙ্কের চেয়ে বেশি টাকা চাওয়া হলে ব্যবসায়ীরা জানান, প্রতি বছর বাজার কমিটির তরফে কালীপুজো কমিটিকে যা চাঁদা দেওয়া হয় তাই দেওয়া হবে। ব্যবসায়ীরা নিজেদের সামর্থ মতো চাঁদা দেওয়ার কথাই জানান পুজো কমিটিকে। তাতে রাজি হয়নি নতুন বাজার সোশাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সদস্যরা।

বাজার কমিটির তরফে বিষয়টি জানানো হয় স্থানীয় কাউন্সিলর জগন্নাথ বিশ্বাসকে। তিনি বলেন, এভাবে দোকানদারদের সঙ্গে জোরজুলুম করা ঠিক নয়। ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করা হবে বলেও জানান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here