kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়কে হেনস্থা করার ঘটনায় ইতিমধ্যেই সরগরম রাজ্য রাজনীতি। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিস্থিতি নিয়ে মন্তব্য করেছে অনেকেই। তাঁদের একাংশের মতে, বাবুলের ছাত্রদের কাছে ক্ষমা চেয়ে বিষয়টি সামাল দেওয়া উচিত। পক্ষে এবং বিপক্ষে নিজেদের বক্তব্য রাখা সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে নামী ব্যক্তিত্বদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন প্রখ্যাত বাচিক শিল্পী ঊর্মিমালা বসুও। তিনি সোশ্যাল সাইটে যাদবপুর কাণ্ড নিয়ে মন্তব্য করেন যে, বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের কাছে বাবুলের ক্ষমা চাওয়া উচিত। সেই মন্তব্যের পরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে জঘন্য এক মিম। তা নিয়ে লজ্জিত স্বয়ং বাবুল সু্প্রিয়।

মূলত ফেসবুকে যে মিম ছড়িয়ে পড়েছে তাতে ঊর্মিমালা বসুর ছবি দিয়ে তলায় লেখা,

‘কামপন্থীদের নতুন যৌনদাসী আত্মপ্রকাশ করলেন।’

এই কদর্য মিম ছড়িয়ে পড়তেই তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বিশিষ্ট মহল। নিজের লেখনীর মাধ্যমে এই বিষয় প্রতিবাদ জানিয়েছেন খ্যাতনামা কবি জয় গোস্বামীও। তিনি লিখেছেন, একজন মানুষকে নয়, এই অপমান এক নারীকে করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়ও এই বিষয় নিয়ে লজ্জিত এবং ব্যথিত। এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে তিনি লিখেছেন,

‘এই ধরনের কাজের আমি তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আমি ওনাকে ব্যক্তিগতভাবে চিনি। আমাকে উনি যা বলেছেন, সে বিষয়ে ওনাকে ফোন করে নিজে কথা বলব। কিন্তু এই ধরনের ন্যক্কারজনক নোংরা খেলা শুরু করবেন না কেউ।’

এই মিম নিয়ে নিজের বক্তব্য রেখেছেন স্বয়ং ঊর্মিমালা বসুও। তিনি লিখেছেন,

‘যাদবপুরের ছাত্র ছাত্রীরা দেশের কঠিন সময়ে যে প্রতিবাদের স্পর্ধা দেখিয়েছে, যাদবপুরের প্রাক্তনী হিসেবে আমার সেটা ভাল লেগেছে। এটা আমার ব্যক্তিগত অনুভব, যা বলার অধিকার আমার রয়েছে। শুধু বলতে পারি, এই ৭৩ বছর বয়সে আমাকে নিয়ে যাদের নোংরা কথা বলতে আটকায় না, তাদের সামনে ছাত্রছাত্রীরা আরও বেশি বিপন্ন। আমার কোন ভয় নেই।জীবনের উপান্তে এসে এই নোংরামি আর অসভ্যতা বেদনাদায়ক এই যা।’

সোশ্যাল সাইটে ছড়িয়ে পড়া এই মিম ঘিরে এখন প্রবল উত্তেজনা গোটা রাজ্যেই। বিভিন্ন মহল একযোগে এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সরব হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here