kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, বারুইপুর: বুধবার সকালে বারুইপুর পশ্চিমের শিখর বালি ১ নম্বর পঞ্চায়েত এলাকায় প্রচারে বেরিয়ে হুড খোলা জিপেই নিজের প্রচার সারলেন যাদবপুর লোকসভার তৃণমূল কংগ্রেসের তারকা প্রার্থী মিমি চক্রবর্তী। মিমি হুড খোলা জিপে করে প্রচার সারলেও বিধায়ক তথা অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় সাত সকালে পায়ে হেঁটেই প্রচারে সঙ্গী হলেন। বিধায়ক গাড়িতে না আসায় পুরমাতা মিতালি দেবি মাইকে বার বার বিধায়ক বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়কে গাড়িতে আসার আবেদন জানালেও তিনি পায়ে হেঁটেই প্রার্থীর প্রচারে সঙ্গ দেন। বিমানবাবু জানান, গাড়িতে অনেকেই রয়েছে তাই তিনি পায়ে হেঁটে প্রচারে যোগ দেন৷ হুড খোলা গাড়িতে প্রার্থীর সঙ্গে না থেকে কেন বিধায়ক বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় পায়ে হেঁটেই প্রচারে সঙ্গ দিলেন তা নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী সমর্থকদের মধ্যেই জোরদার গুঞ্জন শুরু হয়।

বিশেষ সুত্রে খবর, মিমি চক্রবর্তীর ব্যাপারে তাঁর প্রচারের ভাবধারা নিয়ে নিচু তলার তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা ইতিমধ্যে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন দলের নেতৃত্বের কাছে। যদিও এদিন প্রচারে বেরিয়ে মিমি সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, তাঁকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন ভিডিও এডিট করে যে প্রচার চলছে তাতে তিনি অসন্তুষ্ট। যারা এটা করছে তাদের রুচি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তিনি। পাশাপাশি সন্ত্রাসের প্রসঙ্গে বলেন, আমাকে ভয় পেয়েছে তাই বিভিন্ন জায়গায় সন্ত্রাসের চেষ্টা চালানো হচ্ছে। নানা অপপ্রচার করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি তিনি বলেন, প্রচারে মানুষের সাড়া পাচ্ছি, আমি অভিভুত। আমাকে মানুষ দুই হাত দিয়ে আশীর্বাদ করছেন। আগামি দিনে কি করবেন তারও উপায় বাতলে গিয়ে মিমি বলেন, উন্নয়নের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে ইতিমধ্যেই পরিকল্পনা করা হয়ে গিয়েছে। এদিন বিকালে বারুইপুরের শিখর বালি ২ পঞ্চায়েত এলাকায় প্রচার সারেন মিমি৷

তারকা প্রার্থী মিমি চক্রবর্তীর হুড খোলা গাড়িতে সঙ্গী ছিলেন পুর চেয়ারম্যান শক্তি রায় চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান গৌতম দাস ও কলকাতা পুরসভার পুরমাতা মিতালি বন্দ্যোপাধ্যায়। আর অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাঁটার সঙ্গী ছিলেন জেলা পরিষদ সদস্য জয়ন্ত ভদ্র ও পঞ্চায়েত সমিতির সভাধিপতি কানন বালা দাস। এদিন সকালে বারুইপুরের বংশী বটতলা থেকে প্রচার শুরু করেন যাদবপুর লোকসভার তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মিমি চক্রবর্তী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here