bhopal bjp minority cell

Highlights

  • মধ্যপ্রদেশে সিএএ-র বিরুদ্ধে বিজেপির অনদরেই বিক্ষোভ
  • ক্ষুব্ধ সংখ্যালঘু সেলের নেতা কর্মীরা
  • দলত্যাগ করলেন সংখ্যালঘু সেলের ৪৮ সদস্য

মহানগর ওয়েবডেস্ক: নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন, এনআরসির-এনপিআর-র প্রতিবাদে দেশজুড়ো আন্দোলনের কার্যত বিদ্ধস্ত বিজেপি শিবির। রাজ্যে রাজ্যে সাধারণ মানুষকে সিএএ সম্পর্কে অবগত করতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে বিজেপি নেতাকর্মীদের। এবার দলের মধ্যেই কি ফাটল চওড়া হচ্ছে? ভোপালে দলের সংখ্যালঘু সেলের ভূমিকাতেই তা পরিষ্কার হচ্ছে। বিজেপির সংখ্যালঘু সেলের প্রায় ৪৮ জন সদস্য নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে দলত্যাগ করলেন। শুধু দলত্যাগই নয়, দলীয় নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে বিভাজনের রাজনীতি করার অভিযোগ এনেছেন তাঁরা। প্রতিদিনই নাকি কটূ কথা শুনতে হচ্ছিল তাঁদের। এর জেরেই দলত্যাগের সিদ্ধান্ত ওই সংখ্যালঘু নেতা কর্মীদের।

ভোপাল বিজেপির সংখ্যালঘু সেলের ভাইস প্রেসিডেন্ট আদিল খান একটি জাতীয় সংবাদপত্রকে জানিয়েছেন, এমন কোনও সরকার কখনও দেখেছেন যাঁরা সংসদে আইন পাশ করালো তারপর মানুষের দরজায় কড়া নাড়তে যায় এই আইনের পক্ষে সমর্থনের আদায়ের জন্য?

দল ছেড়ে যাওয়া সদস্যরা রাজ্য সংখ্যালঘু সেলের প্রধানকে চিঠি দিয়ে বলেছেন, যে দলটি একসময় শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় এবং অটল বিহারী বাজপেয়ীর নীতি অনুসরণ করে চলত সেইসময় কেউ বৈষম্যের শিকার হয়নি এবং সংখ্যালঘু সহ সবাইকে সঙ্গে নিয়ে চলত দল।

সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, দলত্যাগী যে নেতারা অভিযোগ করেছেন, দলে গণতন্ত্র নেই। পুরো দলটি হাইজ্যাক করে নিয়েছেন দুই বা তিনজন লোক। তবে মধ্যপ্রদেশ বিজেপি এই অভিযোগগুলি প্রত্যাখ্যান করেছে। সংখ্যালঘু সেলের সদস্যদের বিব্রান্ত করার জন্য কংগ্রেস এবং কমিউনিস্টদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে।

বিজেপি নেতা গোপাল ভার্গব একটি সংবাদপত্রকে বলেছেন, দেশের স্বার্থের বিরুদ্ধে কাজ করা সম্প্রদায়ের নেতারা এবং কমিউনিস্টরা আমাদের কর্মীদের বিভ্রান্ত করেছে, যারা বিষয়টি সঠিকভাবে বুঝতে পারছেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here