জন্মাষ্টমীতে কৃষ্ণ সাজে মীর, শুভেচ্ছাকে ছাপিয়ে তীব্র হয়ে উঠল ধর্মের কাদা ছোড়াছুড়ি

0
183

মহানগর ওয়েবডেস্ক: ‘ধর্ম’। দুটি অক্ষরের এই একটি শব্দ শুধু ভারত নয়, বিশ্বজুড়ে দেখিয়েছে হিংসার চরম ভয়াবহতা। যুগ যুগ ধরে ধর্মের এই ভেদাভেদ প্রাণ কেড়েছে লক্ষ মানুষের। না। হুঁশ ফেরেনি। বরং ক্রমবর্ধমান ভেবে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে বিদ্বেষ। এবার সেই তালিকায় পড়লেন বাংলার কমেডিয়ান তথা অভিনেতা মীর আফশর আলি। শুক্রবার জন্মাষ্টমীর শুভদিনে সোশ্যাল মিডিয়ায় নানান পোস্ট করে মানুষকে শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন সেলেবরা। সেই তালিকায় ছিলেন ভিন ধর্মী মীরও। হিন্দু সম্প্রদায়ের এই অনুষ্ঠানে কৃষ্ণ সেজে একটি ছবি পোস্ট করেছিলেন তিনি। তাই নিয়ে শুরু হল জোর বিতর্ক।

এদিন এই ছবি পোস্ট করার পর ক্যাপশানে মীর লিখেছিলেন, ‘ট্রোলকে স্বাগত জানাই। তবে তাঁর আগে এটা জানুন এই ছবিটা ২০০৫ সালে তোলা। জি বাংলার হাউ মাউ খাউ জন্মাষ্টমীর স্পেশাল এপিসোডে। তবে দুঃখের বিষয় এর রেকর্ডিংটা আর আমার কাছে নেই। তবে এই ছিবি অনেক কথা বলে দেয়। রিমঝিম একেবারে উচ্ছ্বসিত। আর আমি এখন ভাবি আমি কীভাবে নিজেকে সহ্য করেছিলাম।’ মিরের এই ছবি পোস্ট হওয়ার পরই তাঁকে শুভেচ্ছা ও ভালবাসা জানান তাঁর বহু অনুরাগি। তবে শুভেচ্ছা বা ভালোবাসা নয়। বিতর্ক আসে কিছু পরেই। কমেন্টে এক ব্যক্তি লেখেন, ‘আমরা হিন্দুরা ধর্ম নিয়ে যথেষ্ট সহিষ্ণু। সেই জন্যই আমাদের দেবদেবী নিয়ে মজা আমরা সহজে মেনে নিই। এমনকি কোনও অ-হিন্দু আমাদের ঈশ্বর নিয়ে ঠাট্টা করলেও কেমন সহজে মেনেনেই আমরা। অন্যান্য ‘শান্তিপূর্ণ’ ধর্মের মতো করি না।’

পাশাপাশি আরও একজন কমেন্ট করেন, ‘আমরা আপনাকে একইভাবে দেখতে চাই হজরথ মহম্মদ বা যিশু খিস্ট রুপেও। শুধুই হিন্দুদের শিব বা কৃষ্ণ নয়। আশা করব তাতে আপনার কোনও সমস্যা হবে না।’ অবশ্য মীরকে নিয়ে বিতর্ক এই প্রথমবার নয়, এর আগে প্রজাতন্ত্র দিবসে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত বা ‘ঋ’ কে নিয়ে পোস্ট করে তিনি লেখেন Happy Rii-Public Day যা নিয়েও শুরু হয়েছিল ব্যাপক বিতর্ক। আর এবার ধর্ম ইস্যুতে বিতর্কে জড়ালেন মীর আফশর আলি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here