মহানগর ডেস্ক: পুলিশ হেফাজতে থাকাকালীন হাসপাতালে বন্দির মৃত্যু ঘিরে উত্তেজনা ছড়াল কলকাতার লেদার কমপ্লেক্স থানায়। মৃতের পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে পুলিশকে মারধরের অভিযোগও ওঠে।

গত ৩ মার্চ বেআইনি বাংলা মদ মজুত রাখার অপরাধে একজনকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। পরে জেল হেফাজতে থাকাকালীন অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাঁকে কলকাতার এসএসকেএম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন থাকাকালীন মারা যান ওই ব্যক্তি। এই ঘটনা শোনার পর মৃতের পরিবার থানায় গিয়ে বিক্ষোভ দেখানোর পাশাপাশি থানা লক্ষ্য করে ইট পাটকেল ছোড়ে বলে অভিযোগ। এই ঘটনায় তিন পুলিশকর্মী আহত হন।  মৃতের নাম মিঠুন সিংহ (৩২)।তাঁর বাড়ি কলকাতা লেদার কমপ্লেক্স থানার বেদেরাইট নয়াবস্তিতে।

সূত্রের খবর, মিঠুন সিংহ বানতলা ট্যানারিতে দিনমজুরের কাজ করত। পাশাপাশি সে নিজেও মদ বিক্রির পাশাপাশি মাদক নিত। গত বুধবার লেদার কমপ্লেক্স থানার পুলিশ তাঁকে ৩৬ বোতল বেআইনি মদ-সহ  গ্রেফতার করে। পরে মিঠুনকে বারুইপুর আদালতে তোলা হলে বিচারক জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন। জেলে অসুস্থ হয়ে পড়ার পর  এসএসকেএম হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকাকালীন শনিবার মারা যায় মিঠুন। পরে পুলিশ তার বাড়িতে গিয়ে খবরট দিতেই পরিবারের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। পুলিশই মিঠুনকে পিটিয়ে মেরেছে এই অভিযোগ তুলে তাঁর পরিবার ও গ্রামবাসীরা লেদার কমপ্লেক্স থানায় গিয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে। এরপরেই পুলিশের উপর হামলার ঘটনা ঘটে। পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে কলকাতা পুলিশ। রুজু হয়েছে মামলাও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here