narendra modi

মহানগর ডেস্ক: দেশে করোনা পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করেছে।  গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তিন লক্ষের বেশি মানুষ। বাংলায় দৈনিক প্রায় ১০ হাজার আক্রান্ত হচ্ছেন। এই পরিস্থিতির মধ্যেও শুক্রবার মোদির  চারটি সভা করার কথা ছিল। কিন্তু দেশে অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা হয়েছে। অক্সিজেনের অভাবে করোনা রোগীর মৃত্যুর খবর, পরিবারের উদ্বেগ ছবি ধরা পড়ছে সংবাদমাধ্যমের পর্দায়। এই পরিস্থিতিতে  শুক্রবার উচ্চ পর্যায়ে বৈঠক করতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাই বাংলার সমস্ত সভা বাতিল করলেন তিনি। বৃহস্পতিবার টুইটারে এই কথাই জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।  শুক্রবার  মুর্শিদাবাদ, বোলপুর, মালদা ও দক্ষিণ কলকাতায় মোদির জনসভা করার কথা ছিল।

দেশে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হতে শুরু করেছে। দেশে করোনার জেরে পরিস্থিতি ভয়ানক আকার ধারণ করেছে। বাংলাতেও করোনা আক্রান্তের গ্রাফ ঊর্ধ্বগামী। এই পরিস্থিতির মধ্যেও রাজ্যে অবাধে নির্বাচনী প্রচার চলছে। সেই বিষয়ে ইতিমধ্যে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে কলকাতা হাইকোর্ট। নির্বাচন কমিশনের ওপর ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছে হাইকোর্ট। অভিযোগ, করোনা বিধি না মেনেই ভোটগ্রহণ করা হচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের হাতে অগাধ ক্ষমতা থাকার পরেও তার কোনও ব্যবহার করছে না। শুধু সার্কুলার জারি করে নিজেদের দায় সেরেছে।

 পাশাপাশি করোনা ইস্যুতে কেন্দ্রের কাছে জাতীয় পরিকল্পনা চেয়েছে। দেশে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে কী কী ব্যবস্থা নিচ্ছে, সেই বিষয়ে জানতে চেয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। দেশ জুড়ে করোনার ওষুধ, টিকা ও অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা গিয়েছে। সেই বিষয়েও কেন্দ্র কী কী পরিকল্পনা নিয়েছে, সেই বিষয়েও বিস্তারিত তথ্য চেয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টের তাৎপর্য মন্তব্যে কার্যত  কিছুটা ব্যাকফুটে কেন্দ্র। তার মধ্যে করোনা পরিস্থিতিতে বাংলার প্রচার নিয়ে বার বার সমালোচনার মুখে পড়েছে মোদি। পরিস্থিতি সামাল দিতেই মোদি বাংলার সফর বাতিল করলেন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here