মহানগর ডেস্ক:   দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছিল। দৈনিক চার লক্ষ মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছিলেন একসময়। সেই সময় দৈনিক চার হাজারের বেশি মানুষ করোনায় মারা যাচ্ছিলেন। সারা দেশ জুড়ে  অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দিয়েছিল। অক্সিজেনের অভাবেই অনেক করোনা আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু হয়েছে। করোনার একবারে সময়কাল থেকে মোদি একাধিক প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কখনও জাতির উদ্দেশে ভাষণে, তো কখনও রাজনৈতিক ভাষণে। কিন্তু তার মধ্যে বেশিরভাগ তিনি পূরণ করতে পারেননি। এমনী কতগুলো প্রতিশ্রুতির কথা তুলে ধরা হল।

প্রতিশ্রুতি ১:  ২১ দিনের লড়াইয়ে আমরা করোনার বিরুদ্ধে জয় পাব

জাতির উদ্দেশে ভাষণে তিনি এমনটাই বলেছিলেন। ২০২০ সালের ২৪ মার্চ জাতির উদ্দেশে তিনি ভাষণ দেন। সেই সময় করোনা ঠিক কী ধরনের ভাইরাস, কতটা সংক্রামক এই বিষয়ে কিছুই জানা যায়নি। সেই সময় জাতির উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন, “মহাভারতের যুদ্ধে জয় এসেছিল ১৮ দিন পরে। আমাদের লক্ষ্য ২১ দিনে করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করা। ২১ দিনের লড়াইয়ে আমরা করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জয়ী হব। ”

এই ঘোষণার ১৩ মাস পরে দেশে করোনা সংক্রমণ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছিল। দেশে দৈনিক চার লক্ষের বেশি করোনায় আক্রান্ত হচ্ছিলেন। করোনায় মৃত্যুর সংখ্যাও চার হাজারের বেশি। দৈনিক করোনা সংক্রমণ কিছুটা কমলেও বর্তমানে এক লক্ষের কাছাকাছি মানুষ নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন।

 

প্রতিশ্রুতি ২:   ভারতীয়দের জীবনের সঙ্গে কোনও আপস নয়

এমন কথাই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন। ১৪ এপ্রিল ২০২০ সালে জাতির উদ্দেশে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি এই কথা বলেছিলেন।

শিশু ও নারী কল্যান মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, গত ৫৫ দিনে দেশের ৫৭৭ জন শিশু করোনায় বাবা-মা দুজনকে হারিয়ে অনাথ হয়ে পড়েছে। এপ্রিল মাসে উত্তরপ্রদেশের পঞ্চায়েত নির্বাচনের কাজ করতে গিয়ে ১৬০০ জন চিকিৎসক করোনায় মারা গিয়েছে। আইএমএ-এর তরফে জানানো হয়েছে,     শুধু করোনায় দ্বিতীয় ওয়েভে ৪৫০ জন চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। ৪২০ জন পুলিশ আধিকারিকের মৃত্যু হয়েছে।

 

প্রতিশ্রুতি ৩:    যত শীঘ্র সম্ভব ভারতীয়দের জন্য করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে আনা হবে

আগের বছর স্বাধীনতা দিবসের দিন গেরুয়া রঙের পাগড়ি পরেছিলাম। লালকেল্লা থেকে বক্তব্য রাখতে গিয়ে করোনায় প্রসঙ্গ উঠে এসেছিল। এসেছিল করোনার ভ্যাকসিনের প্রসঙ্গ। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, দেশে ভ্যাকসিন সরবরাহের সমস্ত ছক কষা হয়ে গিয়েছে। করোনার ভ্যাকসিন উৎপাদন শুরু হলেই অত্যন্ত দ্রুত গতিতে সেই ভ্যাকসিন সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে।

বর্তমানে দেশে ভ্যাকসিনের আকাল দেখতে পাওয়া গিয়েছে। ভারতে করোনা ভ্যাকসিনের নীতি বার বার পাল্টানো হচ্ছে। প্রথমে বলা হল, ১৮-৪৪ বছরের নাগরিকদের করোনার ভ্যাকসিন কিনতে হবে। কিন্তু বিরোধীদের চাপে, সুপ্রিম কোর্টের চাপে বিনামূল্যে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কর্মসূচি নেওয়া হয়েছিল ১ মে থেকে ১৮ থেকে ৪৪ বছরের নাগরিকদের করোনার টিকা দেওয়া হবে। ভ্যাকসিনের অভাবে তা মুখ থুবড়ে পড়ে। ২০২১ সালের ২৫ মে পর্যন্ত মাত্র ২০ কোটি মানুষ করোনার ভ্যাকসিন পেয়েছেন।

 

প্রতিশ্রুতি ৪:  ভ্যাকসিন এখন আয়ত্তের মধ্যে

২০২১ সালের ১৬ জানুয়ারি থেকে ভারতে করোনার টিকা করণ শুরু হয়। প্রাথমিকভাবে ভারতে ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন ও সেরাম ইনস্টিটিউটের কোভিশিল্ড দেওয়া শুরু হয়। এই প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছিলেন, দেশের প্রতিটি মানুষ এতদিন উদগ্রীব ছিলেন, কবে থেকে ভারতে করোনার টিকা পাওয়া যাবে। এখন ভারতে করোনার টিকা পাওয়া যাচ্ছে। আরও বেশ কয়েকটি ভ্যাকসিন নিয়ে আসার কথা চলছে।

ভারতীয় ভ্যাকসিনের ওপর দেশের মন্ত্রীদের অগাধ আস্থা ছিল। ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ফাইজারকে না বলে দেওয়া হয় কেন্দ্রের তরফে। ১৮ থেকে ৪৪ বছরের নাগরিকদের টিকা করণ এখনও সম্পূর্ণভাবে শুরু হতে পারেনি। বলা যেতে পারে সেই টিকাকরণ কর্মসূচি মুখ থুবড়ে পড়েছে। সেই ফাইজারের টিকা আবার দেশে আনার চেষ্টা করা হচ্ছে। ২৪ মে ২০২১ পরিস্থিতি বুঝতে পারে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। ফাইজার ও মর্ডানাকে ভারতে আনার চেষ্টা করা হচ্ছে।

 

প্রতিশ্রুতি:৫ করোনার বিরুদ্ধে আমরা জয়ী হয়েছি

ওয়ার্ল্ড ইকোনমি ফোরামের ভার্চুয়াল সামিটে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি করোনার বিরুদ্ধে জয় ঘোষণা করেন। যদিও তার কিছুদিন পর ফের করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের বিরুদ্ধে জয় ঘোষণা করেন।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি করোনা বিরুদ্ধে জয় ঘোষণার কিছুদিন পরেই ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়। অভিযোগ উঠছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের সতর্কতা কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে বিশেষজ্ঞরা পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু তারপরেও কেন্দ্র সরকার অবহেলা করেছেন। যার জেরে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছিল। আবার সেই দ্বিতীয় ঢেউয়ের সংক্রমণ কমতেই মোদি সরকার ফের করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here