kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, শিলিগুড়ি: নির্বাচনী নির্ঘণ্ট ঘোষণার পর রাজ্যে প্রথম জনসভা করতে আসছেন মোদী৷ রাত পেরোলেই উত্তরবঙ্গের শিলিগুড়ির কাওয়াখালীতে জনসভা করতে আসছেন নরেন্দ্র মোদী৷ তার আগে প্রধানমন্ত্রীর সভাস্থলের কাজ চলছে জোড় কদমে। মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রী সভাস্থলের কাজ খতিয়ে দেখতে মাঠে পৌঁছায় পুলিশের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা। সভাস্থল ঘুরে দেখার পাশাপাশি খতিয়ে দেখা হয় সমস্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা। রোদ থেকে কর্মীদের বাঁচাতে মাঠের বেশ কিছুটা অংশে অস্থায়ী শেডের ব্যবস্থা করা হয়েছে বিজেপি-র তরফে। জানা গিয়েছে, আগামীকাল দুপুর বারোটা নাগাদ জনসভায় আসবেন নরেন্দ্র মোদী।এই জনসভা থেকে লোকসভা নির্বাচনে উত্তরবঙ্গের চারটি লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থীদের হয়ে নির্বাচনী প্রচার করবেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় নিরাপত্তা জোরদার করতে সভাস্থলে লাগানো হয়েছে ১০০ টার বেশি সিসিটিভি ক্যামেরা।

একইসঙ্গে বিজেপি জেলা নেতৃত্বের দাবি তিন লক্ষের বেশি বিজেপি কর্মী সমর্থকরা এই জনসভায় অংশগ্রহণ করবেন। সভায় প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য যাতে প্রত্যেকের কাছে পৌঁছাতে পারে সেই জন্য সাউন্ড সিস্টেম সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। একইসঙ্গে দুটি বড় প্রজেক্টর লাগানো পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে এই সভায়৷ উত্তরবঙ্গের পাশাপাশি দক্ষিণবঙ্গের কলকাতায় বিগ্রেড প্যারেড গ্রাউন্ডে  ব্রিগেড জনসভা করবেন মোদী৷

প্রসঙ্গত, ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের আগে বঙ্গে জনসমর্থন টানতে রথযাত্রা কর্মসূচিকে হাতিয়ার করতে চেয়েছিল বিজেপি৷ জল গড়ায় হাইকোর্ট থেকে সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত৷ শেষমেষ সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে বাতিল হয় জনসভা৷ রথযাত্রা শেষপর্যন্ত ‘গণতন্ত্র বাঁচাও’ সভায় পরিণত হয়। কিন্তু ব্রিগেড সমাবেশ করা হয়নি বিজেপির৷ রাজ্যে শাসকদল ব্রিগেড করতে সক্ষম হলেও সেক্ষেত্রে দইয়ের স্বাদ ঘোলে মিটিয়েই পূরণ করতে হয়েছে বিজেপিকে৷ ‘গণতন্ত্র’ বাঁচাও সভায় আশানুরুপ ভিড় হয়নি৷ তবে এবার কলকাতায় ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে মানুষের মন জিতে নিতে যে কোনও কসুর করবেন না মোদী তা একরকম আঁচ করাই যাচ্ছে৷ সেইসঙ্গে উত্তরবঙ্গে জনসভার মঞ্চ থেকে পদ্মফুল ফোটানোর ডাক দেবেন প্রধানমন্ত্রী৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here