modi-roadshow-759

ডেস্ক: রাজনৈতিক নেতা-মন্ত্রীদের বিতর্কিত মন্তব্য এবং সেটি নিয়ে বিরোধী দলের নির্বাচন কমিশনে নালিশ জানানোর ঘটনা এবারের নির্বাচনের অঙ্গ হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো নেতা, মন্ত্রীর নির্বাচনী জনসভার মন্তব্য ঘিরে অভিযোগ দায়ের হচ্ছে কমিশনে। তবে এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ভোটযাত্রা এবং ভোটদানের পর বুথের বাইরে দাঁড়িয়ে করা মন্তব্য নিয়ে নির্বাচন কমিশনে যেতে চলেছে কংগ্রেস। আবার এদিন টুইটারে ‘ন্যায়’ শব্দ ব্যবহার করা নিয়ে কংগ্রেস সভাপতির বিরুদ্ধে পাল্টা নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের অভিযোগ তুলেছেন বিজেপির শরিক দলের এক প্রার্থী।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ভোটযাত্রা প্রসঙ্গে কংগ্রেসের অভিযোগ, মঙ্গলবার সকালে একটি হুডখোলা জিপে করে আমেদাবাদের রানিপ এলাকার নিশান হাইস্কুলের বুথে ভোট দিতে যান নরেন্দ্র মোদী। তাঁকে দেখতে রাস্তার দুধারে বহু মানুষ ভিড় করেছিলেন। তাঁদের দিকে প্রধানমন্ত্রীকে একাধিকবার হাত নেড়ে অভিবাদন জানাতে দেখা গিয়েছে। এছাড়া তাঁর জিপ খুবই ধীর গতিতে চলছিল। সবমিলিয়ে, নরেন্দ্র মোদীর এদিনের ভোটযাত্রা ‘রোড শো’য়ে পরিণত হয়েছিল এবং এটি নির্বাচনী আচরণবিধি-বিরুদ্ধ বলে কংগ্রেসের অভিযোগ। এছাড়া ভোটদানের পর বুথের বাইরে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী ‘রাজনৈতিক মন্তব্য’ করেছিলেন এবং সেটি নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ করেছে বলে কংগ্রেসের দাবি।

প্রসঙ্গত, এদিন ভোটদানের পর জনগণকে ভোটদানে উত্সাহ দিয়ে নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, ‘জঙ্গিদের অস্ত্র আইইডি এবং গণতন্ত্রের হাতিয়ার ভোটার আইডি। কুম্ভমেলায় স্নান করে যে পবিত্রতা অনুভূত হয়, ভোট দেওয়ার মাধ্যমেও আমি সেই পবিত্রতা অনুভব করি।’ এই মন্তব্যের মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী ভোটারদের প্রভাবিত করার চেষ্টা করেছেন বলে কংগ্রেসের অভিযোগ। অন্যদিকে, কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী এদিন সকালে জনগণকে ভোট দিতে যাওয়ার বার্তা দিয়ে টুইটারে লেখেন, ‘আমি জানি, দেশের মানুষ ন্যায় চান। তাই লক্ষ লক্ষ মানুষ ভোট দিতে যাবেন।’ এই টুইটের মধ্যে কোনো বিতর্কিত কথা না থাকলেও ‘ন্যায়’ শব্দটি কংগ্রেসের নির্বাচনী স্লোগানের অংশ। তাই এই বিষয়টি নিয়ে কমিশনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিজেপির এক শরিক দল।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here