দুর্গা এখানে ভিলেন, স্মরণ হয় মহিষাসুরের

0
314
bengal news

নিজস্ব প্রতিবেদক, পশ্চিম মেদিনীপুরঃ এখানে দুর্গা নয়, বীর ও দেশপ্রেমিক মহিষাসুর। তিনি রাজা। আদিবাসী রাজা হুদুড়। যখন দুর্গা পুজো হয়, তখন এখানে হয় মহিষাসুর স্মরণ। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার মধ্যে হুদুড় দুর্গা স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয় শালবনির কেন্দাশোল গ্রামে। উদ্যোক্তা স্থানীয় বাসিন্দা কৃষ্ণকান্ত মাহাত, পেশায় শিক্ষক।

কথিত আছে, এ লড়াই ছিল আর্য ও অনার্যদের ভূমি দখলের। অনার্যদের রাজা ছিলেন মহিষ পালক হুদুড়। রাজার উপাধি ছিল দুর্গা। (যিনি দুর্গ রক্ষা করেন তিনিই দুর্গা) আর্যরা যখন ভূমি আগ্রাসন করতে করতে এগিয়ে আসছে তখন অনার্যদের পক্ষ থেকে বাধা দেন রাজা। সেই যুদ্ধে ক্ষমতায় না পেরে জনৈক মহিলাকে দিয়ে ছলে বলে কৌশলে হত্যা করা হয় তাদের রাজাকে । তারপর সেই ‘দুর্গা’ উপাধি জিতে নেন মহিলা। তাই দুর্গাপূজোর সময় এঁরা করেন হুদুড় দুর্গা বা মহিষাসুর স্মরণ সভা। অবশ্য নিজেদের রাজা ও তাঁর উত্তরসূরীদের অসুর বলতে নারাজ তাঁরা। বক্তব্য, তাঁরা অনার্য। অসুর বলে আসলে তাঁদের অপমান করা হয়। লাউয়ের খোলার মধ্যে তির, ধনুক দিয়ে তৈরি বাদ্যযন্ত্র নিয়ে এ সময় বের হন তাঁরা। বাজনার মধ্যে অস্ত্র লুকিয়ে প্রতিশোধ নেওয়ার আশায়। এই প্রচলিত রীতি থেকেই তৈরি হয়েছে লোকনৃত্য ভুয়াং। কথিত, ছল করে যুদ্ধ জিতে আর্যরা অনার্য পুরুষদের ওপর অকথ্য অত্যাচার চালাতে থাকে। তা থেকে রক্ষা পেত কেবল নারীরা। তাই, বাধ্য হয়ে অনার্য পুরুষেরা মহিলার ছদ্মবেশ ধারণ করে আশ্রয় নিয়েছিল জঙ্গলে। এই লোক কথা থেকেই তৈরি হয়েছে আরেক লোকনৃত্য তাঁসাই। এই নাচে পুরুষেরা মহিলার মতো সাজেন।

এই সভার জন্য সারা বছর অপেক্ষা করে থাকে এলাকার বাসিন্দারা। স্মরণসভার পর হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও খাওয়া দাওয়া। তবে, শুধু এখানেই নয় মহিসাসুরকে স্মরণ করা হয় রাজ্যের বেশ কিছু এলাকায়।
ধর্ম অনুযায়ী এই যুদ্ধ আর্য ও অনার্যরা সাজিয়ে নিয়েছে নিজেরা। ধর্ম কথা আসলেতো সাহিত্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here