news bengali kolkata

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: স্বস্তি দিচ্ছে বস্তি। যদিও আবাসন গুলিতে শুরু হয়েছে করোনার বাড়বাড়ন্ত। যা ছড়াচ্ছে বিভিন্ন বাজার গুলি থেকে। এবার এই মরণ ভাইরাসের আঁতুড়ঘর বাজার গুলিতে বিশেষ নজরদারি চালাবে কলকাতা পুরসভা। এমনটাই জানিয়েছেন পুরমন্ত্রী তথা কলকাতা পুরসভার প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম। সেই উদ্দেশ্যে বাজারগুলিতে বেশ কিছু নিয়ম বাধ্যতামূলকভাবে পালন করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রশাসক।

এবিষয়ে প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম জানান, ‘বাজারগুলিতে জীবাণুনাশক স্প্রে, রেপিড সোয়াব বা লালা রসের পরীক্ষা সহ একাধিকভাবে মাইক্রো প্ল্যানিং জোরদার হবে। পুরসভার বাজারগুলিতেও চলবে নজরদারি। ইতিমধ্যেই পুরসভার নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের বাজার এবং নিউ মার্কেট বা হগ মার্কেটের মত বাজারগুলিতে মাস্ক, স্যানিটাইজার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। সেই সঙ্গে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সকলের নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে।’ এছাড়াও শহরের অন্যান্য বাজারগুলোতেও এই নিয়ম বাধ্যতামূলক করার নির্দেশ দিয়েছেন পুরমন্ত্রী।

পুরসূত্রের দাবি, মঙ্গলবার থেকেই কলকাতার বাজারগুলিতে নিয়মিত স্যানিটাইজড করার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। ঠিক তেমনি নমুনা সংগ্রহ করা ও ওষুধ খাওয়ানোর কাজও এদিন থেকেই শুরু হয়। পুরনিগমের বক্তব্য, বেলগাছিয়া, রাজাবাজার, খিদিরপুরের মতো এলাকায় যেভাবে নিয়মিত স্প্রে করে, বাসিন্দাদের হাইড্রক্সি ক্লোরোকুইন খাইয়ে সংক্রমণ রোখা গিয়েছে ঠিক সেই পদ্ধতিতেই বাজারগুলিতেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া পুরোপুরি রুখে দেওয়া যাবে।

অন্যদিকে, উপসর্গহীনদের নিয়েও যথেষ্ট চিন্তিত পুরসভা। তাই, এতদিন শুধুমাত্র যেখানে শরীরের জ্বর পরীক্ষা করা হতো, সেখানে এখন থেকে অক্সিজেনের মাত্রা এবং হূদযন্ত্রের সমস্যা আছে কিনা দেখা হবে। সেইমতো অক্সিমিটার ব্যবহার করবে পুরসভা।

উল্লেখ্য, বড়বাজার, তপসিয়া, কাঁকুড়গাছি, বেলেঘাটা সহ বেশ কয়েকটি এলাকায় বহুতলে আক্রান্তের সংখ্যা বিগত কয়েক সপ্তাহে বেড়েছে। উল্টোদিকে, শহরের বস্তি এলাকায় গোষ্ঠী সংক্রমণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। প্রায় নেই বললেই চলে। কিন্তু আবাসনে কী করে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে, সেটা খুঁজে বার করতে গিয়ে পুরসভা দেখেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের বাজার থেকেই ছড়াচ্ছে করোনা। এরপরেই বাজারগুলিতে বিশেষ নজরদারি চালানোর সিদ্ধান্ত নেয় কলকাতা পুরসভার। শুধুমাত্র তাই নয়, নিয়ম মেনে বাজার না চললে, বা সংক্রমণের খোঁজ মিললে সেই বাজার বন্ধ করে দেওয়া হবে বলেও জানায় পুরসভা। এই সিদ্ধান্তের পরেই, মঙ্গলবার থেকেই শহরের বিভিন্ন বাজারের বাইরে টাঙ্গানো হয়েছে পোস্টার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here