kolkata news

নিজস্ব প্রতিনিধি : করোনা রোগীদের নিখরচায় খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন বারাসতের মা ও মেয়ে। শুধু কী তাই? প্রয়োজনে বিনে পয়সায় ওষুধও কিনে পৌঁছে দিয়ে আসছেন রোগীর বাড়ি বাড়ি। বর্তমানে ২০ জন করোনা রোগীর সেবা করে চলেছেন তাঁরা। প্রয়োজনে বাড়বে এই সংখ্যা।

জানা গিয়েছে, বারাসতের নবপল্লির বাসিন্দা শুভ্রা মুখোপাধ্যায় পেশায় স্কুল শিক্ষিকা। তাঁর মেয়ে ঋদ্ধি ভট্টাচার্য ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্রী। এই মা ও মেয়েই আপাতত ভরসা বারাসতবাসীর। শহরের কোথাও কেউ করোনা সংক্রমিত হয়েছেন শুনলেই তাঁরা পৌঁছে যাচ্ছেন তাঁদের বাড়িতে। যাঁরা নিজেরাই শুভ্রা ও ঋদ্ধির সঙ্গে যোগাযোগ করছেন, তাঁদেরও বাড়ি উজিয়ে গিয়ে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন তাঁরা। গত এক সপ্তাহ ধরে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন তাঁরা।

কেন মা ও মেয়ের এহেন ব্যতিক্রমী উদ্যোগ?  জানা গিয়েছে, করোনা সংক্রমিত হলে রোগীদের কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব। তাঁদের দুটি খাবার দেওয়ার কেউ নেই। তাই তাঁদের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন মা ও মেয়ে। নিজেরাই রান্না করে খাবার পৌঁছে দেন রোগীর বাড়িতে।

কোথা থেকে জোগাড় হচ্ছে খাবার? শুভ্রা ও ঋদ্ধি জানান, আপাতত নিজেদের খরচেই চলছে রোগীদের হেঁশেল। প্রয়োজনে আত্মীয়-স্বজনও সাহায্য করতে রাজি। রান্নাটা মা ও মেয়ে করলেও, বন্ধুবান্ধব ও পরিচিত জনেরা খাবার, ওষুধ পৌঁছে দিচ্ছেন রোগীদের বাড়িতে। কতদিন চালাবেন এই হেঁশেল। শুভ্রা ও ঋদ্ধি জানান, যতদিন করোনার ভয়াবহতা থাকবে, ততদিন তাঁরা চালিয়ে যাবেন এই মহতী উদ্যোগ। তাঁদের হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর—৮৯০২১০৫৮৯৭       

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here