kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, ইংরেজবাজার: বড় মামা বরকত গনিখান চৌধুরির উন্নয়নের স্বপ্নকে হাতিয়ার করেই রাজনীতিতে আসা তার। উন্নয়নের জন্যই কংগ্রেস ছেড়ে তৃনমুলে যাওয়া। তবে লোকসভা ভোটে সেই উন্নয়নের তথাকথিত ‘কান্ডারি’ গনিখান চৌধুরীকেই ভুলে গেলেন উত্তর মালদার সাংসদ তথা তার ভাগ্নী মৌসম বেনজির নুর। এ বি এ গনিখানের ১৪ তম প্রয়ান বার্ষিকীতে কংগ্রেস বা তৃণমূলের অন্যান্য নেতাদের দেখা গেলেও মালা দিতে আসতে দেখা গেল না মৌসম বেনজির নুরকে। মৌসম কেন এলেন না, সাংবাদিকদের কাছ থেকে সেই প্রশ্ন ছুটে আসতেই মেজাজ হারালেন ডালু ওরফে দক্ষিণ মালদার সাংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরী।

রবিবার মালদা জেলার তথাকথিত রূপকার প্রয়াত সাংসদ আবু আতাউর গনিখান চৌধুরীর ১৪ তম মৃত্যু দিবস পালন করল কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেস। গনিখান পরিবারের সদস্য আবু হাসেম খান চৌধুরী, আবু নাসের খান চৌধুরী, শাহনাজ কাদরি সহ অন্যান্য সদস্য গনিখান চৌধুরীর সমাধিস্থলে শ্রদ্ধা জানান। এরপর মালদা শহরের রথবাড়ি এলাকায় প্রয়াত সাংসদ গনিখান চৌধুরীর মূর্তিতেও পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন আবু হাসেম খান চৌধুরী।

তৃণমূলের পক্ষ থেকে বৃন্দাবনী ময়দান ও রথবাড়ি এলাকায় গনিখানের মূর্তিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। মোথাবাড়ি বিধানসভার বিধায়িকা সাবিনা ইয়াসমিন, তৃণমূল নেতা নরেন্দ্রনাথ তিওয়ারি সহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা রথবাড়ি এলাকায় গনিখানের মূর্তিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয় কংগ্রেসের জেলা কার্যালয়েও। তবে কংগ্রেসের পাশাপাশি তৃণমূল কংগ্রেসের নেতানেত্রীরা শ্রদ্ধা জানাতে এলেও নজরে পড়েননি মৌসম।

দলীয় সূত্রের খবর, মৌসম এখন চাঁচলে রয়েছেন। সেখান থেকেই ভোট ও প্রচারের সবকিছু পরিচালনা করছেন। তবে প্রতিবার নিয়ম করেই বড় মামার জন্ম ও মৃত্যুদিন পালন করেন মৌসম। এবার তার অনুপস্থিতি স্বাভাবিকভাবেই গুঞ্জন ছড়িয়েছে শহরের রাজনৈতিক মহলে। মৌসম নুরের অনুপস্থিতি নিয়ে আবু হাসেম খান চৌধুরীকে প্রশ্ন করা হলে তিনি মেজাজ হারিয়ে ফেলেন। তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলেন, বারবার কেন এই প্রশ্ন করা হচ্ছে। কোতয়ালি পরিবারের সদস্য মৌসম নুর কংগ্রেস ছেড়ে উত্তর মালদা কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থী হয়েছেন। এই নিয়ে পরিবারের সদস্যদের মধ্যে দূরত্বও তৈরি হয়েছে। তাই হয়তো এই প্রশ্ন শুনে মেজাজ হারান আবু হাসেম খান চৌধুরি।

অন্য দিকে উত্তর মালদা তৃণমূল প্রার্থী মৌসম বেনজির নূর জানান, ‘ভোটের লড়াইটা হল আইডিওলজিক্যাল লড়াই। এটা বাইরে আছে, বাড়ির ভিতর এই লড়াইকে প্রবেশ করতে কখনোই আমরা দিই না। মামার আদর্শেই আমি পথ চলছি। মামা হৃদয়ে আছে। মালা পরানো, বা না পরানোতে কিছু এসে যায় বলে আমি মনে করি না।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here