মহানগর ওয়েবডেস্ক: কংগ্রেস থেকে বিজেপিতে যোগ দেওয়া জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াকে নিয়ে উচ্ছ্বাস এবং কৃতজ্ঞতা কোনওটারই অভাব শাসকদলে এতদিন পর্যন্ত দেখা যায়নি। মাত্র ২২ জন বিধায়ক নিয়ে পাঁচিল টপকে একটি রাজ্যের মসনদ পাইয়ে দেওয়ার আগে ধরে নেওয়া যায় মধ্যপ্রদেশের ‘রাজকুমার’ নতুন দলে যথাযথ ‘সম্মান’ পাওয়ার ব্যাপারটা নিশ্চিত করেই পদক্ষেপ ফেলেছেন। সিন্ধিয়া বিজেপি’র সমর্থনে রাজ্যসভার সদস্য হয়েছেন। কিন্তু বাড়তি আরও ‘সম্মান’ রাখতে গিয়েই সম্ভবত সিন্ধিয়া’র সঙ্গে শাসকদলের প্রাথমিক মধুচন্দ্রিমাটি শেষ হল।

সম্প্রসারিত মন্ত্রীসভার শপথ গ্রহণ হয়ে যাওয়ার ছ’দিন পরও মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান মন্ত্রীদের দফতর বন্টন করে উঠতে পারেননি। এই অস্বাভাবিক বিলম্ব যে খুব সঠিক বার্তা দিচ্ছে না সেটা বৃহষ্পতিবার স্পষ্ট করে বলে দিলেন মধ্যপ্রদেশে বিজেপি’র বরিষ্ঠ নেতা গণেশ সিং। এই বিলম্বের কারণটি তিনি দলে সদ্য আগত জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াকে ভাবতে বললেন। প্রশ্ন উঠেছে দফতর বন্টন করবেন মুখ্যমন্ত্রী, তাহলে বিষয়টি সিন্ধিয়া ভাববেন কেন?

কোনওরকম ধোঁয়াশা না রেখেই গণেশ সিং জানিয়েছেন, ”জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া রাজ্য রাজনীতিতে একজন উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব। দলের শীর্ষ নেতারা তাঁকে অত্যন্ত সম্মান করেন। ওনার খুব আন্তরিকতার সঙ্গে ভাবা উচিত উনি এই দফতর বন্টনের বিলম্বের কারণ হয়ে উঠছেন কিনা। মানুষ শিবরাজ সিং চৌহানের নেতৃত্বে একটি ভালো সরকার দেখতে চায়।” দফতর বন্টন মুখ্যমন্ত্রীর এক্তিয়ার এবং এ বিষয়ে কারও নাক গলানোর অধিকার নেই বলে মন্তব্য করেন পরপর তিনবারের সাংসদ গনেশ সিং।

এপ্রিল মাসে সিন্ধিয়ার দৌলতে রাজ্যপাট হাতে পেয়ে মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং একটি ছোট মন্ত্রীসভা গঠন করেছিলেন। চলতি মাসে ২ তারিখ যথেষ্ট ‘ভাবনাচিন্তা’ করে মন্ত্রীসভার সম্প্রসারণ ঘটান চৌহান। কিন্তু কোনও এক ‘অজ্ঞাত’ কারণে ছ’দিন কেটে যাওয়ার পরও মন্ত্রীরা দফতরবিহীন অবস্থাতেই রয়েছেন। দফতর বন্টন নিয়ে তাঁর সমস্যার কথা জানাতে শিবরাজ দিল্লিতেও গিয়েছিলেন।

সূত্রের খবর দফতর বন্টনের ক্ষেত্রে ঐক্যমত্যে না আসতে পারার কারণেই দফতর বন্টনে বিলম্ব হচ্ছে। কার সঙ্গে ঐক্যমত হওয়াটা পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদ শিবরাজ সিং–এর কাছে এখন বাধ্যতামূলক সেটা আন্দাজ করার জন্য বিশেষজ্ঞ হওয়ার দরকার নেই। আর গনেশ সিং–এর বিবৃতিই মধ্যপ্রদেশ বিজেপি’র অভ্যন্তরীণ সংকটকে প্রকাশ্যে এনে দিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here