ডেস্ক: গত সপ্তাহেই জাতীয় তদন্তকারী সংস্থার জালে ধরা পরেছিল আইএস জঙ্গি সংগঠনের প্রধান মুফতি সুহেল। তাঁকে গোয়েন্দা সংস্থার তরফে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে জানায়, ২০০৯ সাল থেকে সে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের সঙ্গে যুক্ত ছিল। সমাজে মুসলিমদের উপর ভারতীয়দের অত্যাচার, ‘উৎপীড়ন’ দেখে সে বীতশ্রদ্ধ হয়ে গিয়ে মুফতি সুহেল সন্ত্রাসবাদী দলে যোগ দিয়েছে। তবে এই সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ চালিয়ে যাওয়ার জন্য পর্যাপ্ত টাকা পয়সার অভাব ছিল।

২০০৬ সাল পর্যন্ত সন্ত্রাসবাদী সংগঠন হিসাবে আলকায়দা জঙ্গি গোষ্টীর নাম সকলের মুখেমুখে চলত। তবে ২০১৪ সালে ইসলামিক জঙ্গিগোষ্ঠী সিরিয়া এবং ইরাকের কিছু অংশ দখল করার পর আইসিস জঙ্গিগোষ্টীর কার্যকলাপ প্রকাশ্যে আসে। ২৯ বছর বয়সী এই মুফতি সুহেলকে গতসপ্তাহেই জাফারাবাদ থেকে এনআইএ গ্রেফতার করে। সুহেল তদন্তকারী গোয়েন্দাদের জানায়, তৎকালীন বাবরি মসজিদ হামলা এবং দেশজুরে মুসলিমদের উপর অত্যাচারের ঘটনায় বাধ্য হয়ে আইএস জঙ্গিগোষ্টীতে যোগদান করে। শুধু তাই নয় তার আরও অভিযোগ হিন্দু শাসিত ভারতে সংখ্যালঘু মুসলিমরা চাকরির অভাবে ঠিক মত দুবেলা খাবারটুকুও জোগাড় করতে পারে না। তাই অভাবের তাড়নায় জঙ্গি দলে যোগদান করেছে।

গোয়েন্দারা জানান, তাকে জেরা করে জানা গিয়েছে সুহেল তার সমস্ত কথার প্রেক্ষিতে যুক্তি খাড়া করে রাখা। শুধু তাই নয় জঙ্গি সংগঠনে সে একজন প্রভাবশালী ব্যক্তি হিসাবে পরিচিত ছিল, সে এই তাদের এই কার্যকলাপে যোগদান করার জন্য ২০ থেকে ৩০ বছরের একাধিক যুবককে উদ্বুদ্ধ করেছিল। সোহেল ভারতে বসেই একটি অয়েবসাইটের মাধ্যমে আইএস-এ যোগদান করেছিল। জেরায় গোয়েন্দাদের মুফতি সোহেল জানায়, সে ভারতে থেকেই হামলার যাবতীয় পরিকল্পনা চালাচ্ছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here