সংখ্যালঘু ও দলিত নিগ্রহের অধিকাংশ ঘটনাই সাজানো! দাবি মুক্তার আব্বাস নকভির

0
98

মহানগর ওয়েবডেস্ক: সপ্তাহখানেক আগে ছিল অন্য কথা, বদলে গিয়ে হলো আরেক কথা। কেন্দ্রীয় সংখ্যালঘু উন্নয়ন মন্ত্রী মুক্তার আব্বাস নকভি সাম্প্রতিককালে বলেছিলেন, কাউকে দিয়ে জোর করে জয় শ্রীরাম বলানো যাবে না। সপ্তাহখানেক কাটতে না কাটতেই কথা বদলে গেল তাঁর। মন্ত্রী বললেন, দেশে ঘটেতে থাকা একের পর এক পিটিয়ে মারার ঘটনা সামনে আসছে, তাঁর মধ্যে বেশির ভাগইটাই ভুয়ো।

জয় শ্রীরাম প্রসঙ্গ তুলে কিছুদিন আগে সমাজবাদী পার্টির সাংসদ আজম খান বলেছিলেন, দেশ ভাগ হওয়ার সময় যদি দেশের মুসলিমরা পাকিস্তান চলে যেত তবে অনেক ভাল হতো। সংখ্যালঘুদের দেশে থাকতে দিচ্ছে না বিজেপি। তিনি আরও বলেন, বাপুকে, নেহেরুকে, মৌলানা আজাদকে জিজ্ঞাসা করুন তাঁরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন দেশের সংখ্যালঘুদের সুরক্ষার। আর আজকে তাঁরা দেশে মাথা উঁচু করে বাঁচার সুযোগও পাচ্ছে না। খানের কথার প্রত্যুত্তেরে নকভি বলেন, দেশের মধ্যে ঘটতে থাকা বেশিরভাগ ঘটনাই সজানো।

আব্বাসির কথার জবাবে কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সুরযেওয়ালা বলেন, আমি নকভি মহাশয়কে সম্মান জানিয়েই বলছি, আপনি কি জানেন দেশের লংখ্যালঘুদের কী অবস্থা? তাঁদের নিয়ে কী অবস্থা চলছে দেশে? তিনি আরও বলেন, কেন্দ্র সরকারে কোনও মাথাব্যথা নেই সংখ্যালঘুদের নিয়ে। পরিসংখ্যান তুলে ধরে কংগ্রেসের তরফে দাবি করা হয়, নরেন্দ্র মোদী সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দেশের সংখ্যালঘুদের উপর অত্যাচার ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। বিহার, উওরপ্রদেশে ক্রমশ বাড়ছে দলিতদের উপর অত্যাচার। এই বিষয় নিয়ে কেন্দ্রে ক্ষমতায় থাকা বিজেপি সরকারকে সেভাবে কড়া পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি।

সাম্প্রতিককালে গণপিটুনি প্রসঙ্গে মোদীকে বলতে শোনা যায়, এমন ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে সে বিষয়ে রাজ্য সরকার তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের কড়া ব্যবস্থা নিতে হবে। লোকসভা ভোটে দ্বিতীয়বার জয়ী হয়ে আসার পর মোদী বলেন, দেশে দলিত ও সংখ্যালঘুদের উপর হওয়া অত্যাচারের বিরুদ্ধে সরব হতে হবে। এবং একইসঙ্গে তাঁদের উন্নয়নের বিষয়েও জোর দিতে দেখা গেছে তাঁকে। এবার তারই এক মন্ত্রিসভার মন্ত্রীর এমন মন্তব্য প্রবল দ্বিচারিতার মধ্যে ফেলে দিয়েছে বিজেপিকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here