ডেস্ক: দীর্ঘায়িত নাটকের পর গতকালই যবনিকা পতন হয়েছে কর্ণাটকের। সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করবেন না বুঝতে পেরে আস্থা ভোটের আগেই মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন বিএস ইয়েদুরাপ্পা। বিজেপির এই হার অনেকটাই স্বস্তি দিয়েছে বিরোধী শিবিরে। ইস্তফা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই টুইট বার্তায় একে ‘গণতন্ত্রের জয়’ বলে আখ্যা দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এতেই বিরাট ক্ষেপেছেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়। এবার তাঁর বক্তব্য, গণতন্ত্র বিরোধী কাজ দেখলেই উচ্ছ্বসিত হয়ে প্রশংসা করেন মমতা। কারণ তিনি গণতন্ত্র মানেন না।

বাংলায় পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে অশান্তি ও সন্ত্রাসের ছবি ধরা পড়েছে জেলায় জেলায়। মনোনয়ন পর্ব থেকে শুরু করে ভোটগ্রহণ ও গণনার দিন পর্যন্ত হত্যালীলা চলেছে বাংলা জুড়ে। আক্রান্ত হয়েছে সংবাদ মাধ্যমও। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের রিপোর্ট তলব থেকে শুরু করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উদ্বেগ প্রকাশ। কম জলঘোলা হয়নি পঞ্চায়েত নিয়ে। ফলে এই নির্বাচনকেই যে বিরোধীরা নিশানায় নেবেন তা সহজেই বোধগম্য। এই নিয়েই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানায় নিয়ে মুকুলের দাবি তিনি গণতন্ত্রেই বিশ্বাস করেন না। কর্ণাটক নির্বাচনের উদাহরণ টেনে মুকুল বলেন, সেখানে ৫ কোটি মানুষ ভোট দিলেও একজনেরও প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি। উল্টো দিকে বাংলার ছবিও মনে করিয়ে দেন মুকুল। তাই তৃণমূল ত্যাগী মুকুল রায়ের দাবি, গণতন্ত্রে বিশ্বাস করেন না বলেই কর্ণাটকের ফলে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন মমতা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here