ডেস্ক: মুকুল রায়ের একান্ত অনুগত ভক্ত বলা যায় তাঁকে। তৃণমূলের সঙ্গে দীর্ঘ দুই দশকের সম্পর্ক ত্যাগ করে মুকুল বিজেপিতে যোগ দিলে, মুকুলের হাত ধরেই গেরুয়া শিবিরের পথ ধরেন একসময়ের দাপুটে এই তৃণমূল নেতা। কথা দিয়েছিলেন মুকুল যেখানে তিনিও সেখানে। কিন্তু কথাই সার, দল বদলের মাত্র কয়েক মাসের মধ্যেই বিজেপি তথা মুকুল অনিহা শুরু হল এক সময়ের তৃণমূল ত্যাগী বিজেপি নেতা আকাশ ঘটকের।

তবে বিজেপির সঙ্গ ত্যাগ করলেও ফের তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন না আকাশবাবু। বিজেপি ও তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ তুলে পাকাপাকিভাবে কংগ্রেসের দিকেই পা বাড়িয়েছেন তিনি। তবে হঠাৎ কেন তিনি বিজেপির ও মুকুলের সঙ্গ ত্যাগ করছেন এই মুকুল ভক্ত? এ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের তিনি জানান, ‘মুখে যতই বিরোধিতার নাটক করুক, আসলে নিজেদের মধ্যে ভালো সম্পর্ক রেখেই চলছে বিজেপি ও তৃণমূল কংগ্রেস। আর এই সবটাই চলছে রাজনৈতিক কার্যসিদ্ধির উদ্দেশ্যে।’ তাঁর দাবি, তৃণমূল ও বিজেপির এই আঁতাতের সমস্ত প্রমান তাঁর কাছে আছে। প্রয়োজন অনুযায়ী, হাটে হাড়িটা ভেঙে দেবেন রাজ্যের সবচেয়ে শক্তিশালী এই দুই রাজনৈতিক দলের।

একইসঙ্গে রাজ্য বিজেপিতে মুকুল রায়ের অবস্থাটা ঠিক কোন পর্যায়ে রয়েছে তা বোঝাতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘মুকুল রায় বিজেপিতে যোগ দিলেও রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের কাছে তিনি রীতিমতো ব্রাত্য। স্বাধিনভাবে কাকজ করতে দেওয়া তো হচ্ছেই না তাঁকে, দলের সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে প্রতি মুহূর্তে বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন তিনি।’ তাঁর দাবি রাজ্য বিজেপির শীর্ষ স্থানীয়রা মুকুলকে ঠিক মেনে নিতে পারেননি। তাই প্রতিটি পদক্ষেপে তাঁর সঙ্গে অন্যায় চলছে রাজ্য বিজেপিতে।’

এদিকে মুকুল রায়ের সঙ্গ নিয়ে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি ও এবার বিজেপির সঙ্গ ত্যাগ করে কংগ্রেসের হাত ধরার জন্য সবরকম প্রস্তুতি সেরে ফেলেছেন আকাশ ঘটক। সম্প্রতি দিল্লিতে গিয়ে কংগ্রেসের শীর্ষস্থানীয়দের সঙ্গে কথাবার্তা প্রায় পাকা করে ফেলেছেন তিনি। জানা যাচ্ছে, খুব শীঘ্রই তাঁকে দিল্লি কিংবা রাজ্য থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে কংগ্রেসে যোগদান করানো হতে পারে।