Home Featured নাড্ডা-অভিষেক, তির ছোঁড়াছুঁড়িতে উত্তাল বাংলা থেকে দিল্লি

নাড্ডা-অভিষেক, তির ছোঁড়াছুঁড়িতে উত্তাল বাংলা থেকে দিল্লি

0
নাড্ডা-অভিষেক, তির ছোঁড়াছুঁড়িতে উত্তাল বাংলা থেকে দিল্লি
Parul

নিজস্ব প্রতিবেদক: ডায়মন্ড হারবারে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার কনভয়ে হামলা। আর তা নিয়েই উত্তাল বাংলা থেকে দিল্লি। দুই সভা থেকে নাড্ডা ও অভিষেক আক্রমণ করেছে পরস্পরকে। এই ঘটনায় কিছুটা অবশ্য ভাটা পড়েছে শুভেন্দু জল্পনায়।

শিরাকোলে নাড্ডার কনভয়ে হামলা চালায় একদল দুষ্কৃতী। ছোঁড়া হয় ইঁট, পাথর। গাড়ির কাঁচ ভাঙচুর হয়েছে। কনভয় ছিলেন বিজেপির নেতা কৈলাশ বিজয় বর্গী, শিবপ্রকাশ, অনুপম হাজরা প্রমুখ। গেরুয়া শিবিরের পক্ষ থেকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়েছে তৃণমূলকে।

সাদা থেকে নাড্ডা বলেন, মা দুর্গার কৃপায় এখানে পৌঁছাতে পেরেছি। তিনি বলেন, বাংলায় গুন্ডারাজ, অসহিষ্ণুতা, অরাজকতা চলছে। বিরোধীদের গলা টিপে ধরা হয়েছে। এর পরেই তিনি দাবি করেন, বঙ্গেও পরিবর্তন হয়ে গিয়েছে। শুধু ভোটের অপেক্ষা। এও বলেন, বাংলায় আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প ফেরানো হবে। ডবল ইঞ্জিনে গাড়ি চলবে। মোদি উন্নয়নের সুবিধা পাবে বাংলা। এরপরই দাবি করেন, কেন্দ্রীয় প্রকল্পের সমস্ত টাকা মেরে নিচ্ছে তৃণমূল নেতৃত্ব। তাই সুবিধা পাচ্ছে না বাংলা।

আরামবাগের সভা থেকে তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বলেন, ‘নাড্ডা গাড্ডায় পড়েছে। মানুষের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ দেখা যাচ্ছে। ভাঙচুর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এসব বিজেপি ইচ্ছাকৃতভাবে করেছে, আদৌ কিছুই হয়নি।

তৃণমূলের আক্রমণ দাবি করে রাজ্যপালের হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন দিলীপ ঘোষ, লকেট চ্যাটার্জি। রাজ্যপাল নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে লেখেন, নাড্ডার সভায় তৃণমূল হার্মাদের হামলা চলেছে।

দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ফোন করে খোঁজ নেন স্বয়ং মোদি। অন্যদিকে আগামী সপ্তাহেই রাজ্যে আসার ঘোষণা করেছেন অমিত শাহ।

এ দিনের ঘটনা প্রসঙ্গে মমতা বলেন, সাড়া না পেয়ে বিজেপি নাটক করছে। প্রচারের আলোয় আসতে চাইছে। নিজেরাই পাথর ছুঁড়েছে। আবার তৃণমূলের পক্ষ থেকে বলা হয়, যেই কেন্দ্রীয় নেতা বলতে পারেন ‘বিশ্বভারতী ছিলেন রবীন্দ্রনাথের জন্মস্থান’ তাঁর কাছ থেকে বাংলার মানুষের পালস্ আশা করা সম্ভব নয়। তৃণমূল পতাকা নিয়ে বিক্ষোভ দেখিয়েছিল ঠিকই। কিন্তু আক্রমণ করেনি। এটা বিজেপির নোংরা চাল।

অন্যদিকে, অভিষেকের দিল্লির বাড়িতে, বঙ্গভবন-এ বিজেপি সদস্যরা কালো কালি লেপে দেয়। বিক্ষোভ দেখায়। সব নিয়ে বাংলা থেকে দিল্লি উত্তেজনায় ফুটছে তৃণমূল- বিজেপি দ্বন্দ্বে।

অন্যদিকে, শুভেন্দু অধিকারী এখনও পর্যন্ত নীরব। ইতিমধ্যেই খোলা হয়েছে তাঁর নামে আলাদা কার্যালয়। এখানে বিধায়ক লেখা নেই। উল্লেখ করা হয়েছে, শুভেন্দু অধিকারী কার্যালয়। সম্প্রতি তাঁর অনুগামীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে যোগাযোগ করেছেন। তার আগে তাঁকে বারবার দেখা গিয়েছে কলকাতা আর কোলাঘাট গেস্ট হাউসে। সাম্প্রতি, তাঁর আসার আগেই ওই জায়গায় দেখা গিয়েছে পুরুলিয়ার এক সাংসদকে। ইতিমধ্যে শীলভদ্রের সঙ্গে মুকুল রায়ের যোগাযোগ জল্পনা বাড়িয়েছে আরও। শুভেন্দু বিজেপি শিবিরে যাবেন নাকি নিজে দল করবেন। এত সবের মাঝেই বাংলায় বারবার বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের আগমন বাড়িয়েছে জল্পনা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here