কলকাতা: মাদকাসক্ত হয়ে যুবকের মৃত্যু, এরপর চায়ের দোকানের মাদক বিক্রির প্রতিবাদে রবিবার রাতে অগ্নিগর্ভের চেহারা নেয় যাদবপুরের প্রিন্স গোলাম মহম্মদ শাহ রোড। কয়েকটি দোকান ভাঙচুর করা হয়। আগুন লাগানো হয় একটি চায়ের দোকানে। খবর পেয়ে যাদবপুর থানার পুলিশ গেলে তাদের উপরেও আক্রমণ করা হয়। বেশ কয়েকজন পুলিশকর্মী গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। আজও সকালে থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে এলাকা জুড়ে।

পুলিশ সূত্রে খবর, অমিত রায় নামের স্থানীয় এক যুবক মাদকাসক্ত হয়ে গতকাল রাত ১১টা নাগাদ আত্মঘাতী হয়। ঘর থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হয় অমিতের মৃতদেহ। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকাজুড়ে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, চায়ের দোকানের আড়ালে মাদক বিক্রির কাজ চলে। পুলিশকে বিষয়টি জানানো সত্ত্বেও কোনও ব্যবস্থাই নেওয়া হয়নি অভিযোগ উঠেছে। দীর্ঘদিন ধরেই স্থানীয় বাসিন্দারা অভিযোগ করে এসেছেন যে বিশ্ববিদ্যালয় সহ স্থানীয় যুবকেরাও মাদকে আসক্ত হয়ে পড়েছেন। উল্টে মাদক বিক্রি করতে পুলিশ দোকানদারদের সাহায্য করছে বলেও অভিযোগ করেন তারা। এই কারণেই ঘটনাস্থলে পুলিশ আসার ফলে স্থানীয়দের তোপের মুখে পড়তে হয় পুলিশকে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বাধ্য হয়ে অতিরিক্ত বাহিনী নামাতে হয় পুলিশকে। রাত বারোটা নাগাদ এলাকায় ঢোকে বিশাল পুলিশ বাহিনী। স্থানীয়দের বিক্ষোভের মাত্রা আরও চড়তে থাকে। পরে বেশি রাতের দিকে অবস্থা সামাল দেয় পুলিশ। বিশৃঙ্খলতা সৃষ্টি ও তাণ্ডব ছড়ানোর অভিযোগে এখনও পর্যন্ত তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। মাদক বিক্রির অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে দুজনকে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here