নিজস্ব প্রতিবেদক: বিধানসভা নির্বাচনের আগে বাঙালি আবেগকে হাতিয়ার করে এগোচ্ছে বিজেপি ও স্বয়ং মোদি। এমনটাই ইঙ্গিত পাওয়া গেল ইন্দো-উজবেকিস্তান ভার্চুয়াল সামিটে।

তৃণমূল কংগ্রেস তথা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পক্ষ থেকে বারবার বিজেপি কে আক্রমণ করে বলা হয়েছে, ‘বহিরাগত’, ‘দিল্লির দল’, ‘বাংলা ও বাঙালির পালস্ বোঝে না’।

এদিকে, দিলীপ ঘোষের সাম্প্রতিককালের কিছু মন্তব্য আঘাত করেছে বাঙালি ইমোশনে। বঙ্গ সফরে এসে নাড্ডা বলে ফেলেছেন ‘বিশ্বভারতী হলেন রবীন্দ্রনাথের জন্মস্থান’। নাড্ডা সফরকে ঘিরে উত্তেজনা বাংলা থেকে দিল্লিতে। বঙ্গভবনে লেপে দেওয়া হয়েছে কালো কালি।

‘বাঙালি বিদ্বেষী’ ট্যাগ ঘোচাতে উঠে পড়ে লেগেছে বিজেপি। নেতৃত্ব দিচ্ছেন স্বয়ং মোদি তথা বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব গণ। কনভয়ে আক্রমণের পরে জেপি নাড্ডা সভায় বলেছেন, ‘মা দুর্গার কৃপায় এখানে পৌঁছাতে পেরেছি’। ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বারবার বাংলার মনীষীদের বাণী আওড়েছেন। নতুন সংসদ ভবন উদ্বোধনে স্মরণ করেছেন বিবেকানন্দ ও রবীন্দ্রনাথকে। এদিনের ইন্দো- উজবেকিস্তান ভার্চুয়াল সামিটে প্রধানমন্ত্রীর ব্যাকড্রপ- এ ছিল দক্ষিণেশ্বর মন্দিরের ছবি। বিজেপির সোশ্যাল মিডিয়া সেই ছবি প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছে। লেখা হয়েছে, বিশ্বের দরবারে বাংলাকে তুলে ধরার জন্য ধন্যবাদ।

এবারের বিধানসভা নির্বাচনে সমস্ত দলই জোর দিতে চাইছে বাঙালি ইমোশনে। অরাজনৈতিক সংগঠন বাংলা পক্ষ, বাংলা জাতীয় সম্মেলনের মতো একাধিক সংগঠন বা রাজনৈতিক সংগঠন তৃণমূল কংগ্রেস, কংগ্রেস, বাম, বিজেপি- সকলের গলাতেই বাংলা ও বাঙালির সুর। এরমধ্যে বিজেপিকে বিভিন্ন দল বার বার ‘বাঙালি বিরোধী’ বলে উল্লেখ করেছে। সেই ‘কাদা’ মুছতেই বিজেপির-ও হাতিয়ার বাঙালি আবেগ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here