mamata-modi
ধূপগুড়ির নিহত এবং আহতদের সাহায্য কেন্দ্র-রাজ্যের
mamata-modi
ধূপগুড়ির নিহত এবং আহতদের সাহায্য কেন্দ্র-রাজ্যের

মহানগর ডেস্ক: ধূপগুড়ির দুর্ঘটনা ঘিরেও এবার শুরু হল রাজনীতি। রাজ্যের তরফ থেকে কোনও সাহায্যের আগেই নিহত পরিবারকে দুই লক্ষ এবং আহতদের ৫০ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণের কথা টুইট করে জানান স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। অন্যদিকে, রাজ্যের তরফ থেকেও মৃতদের পরিবারকে আড়াই লক্ষ টাকা অর্থ সাহায্যের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

তবে বিতর্ক অন্য বিষয়ে, ভারতের একটি অঙ্গরাজ্যের এক প্রান্তিক মফস্বল শহরে দুর্ঘটনায় মৃত্যু নিয়ে সাম্প্রতিক কালে প্রধানমন্ত্রী যে টুইট করেননি, তা নয়। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে আসন্ন বিধানসভা ভোটের আবহে তাঁর ধূপগুড়ি সংক্রান্ত টুইট নিযে ‘রাজনৈতিক ব্যাখ্যা’ শুরু হয়ে গিয়েছে। তৃণমূলের দাবি, প্রধানমন্ত্রী এবং বিজেপি নেতারা বিষয়টি নিয়ে রাজনীতি করছেন।

বুধবার রাতে ধূপগুড়ির দুর্ঘটনায় হারিয়েছে ১৪টি প্রাণ। এখনও তার ভয়াবহ অভিঘাত কাটিয়ে উঠতে পারেননি স্থানীয় মানুষ। ধূপগুড়ির দুর্ঘটনা নিয়ে আগেই শোকপ্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নিহতদের পরিবার পরিজনকে সবরকম সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। তবে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে রাজ্যের তরফে ক্ষতিপূরণ ঘোষণা হওয়ার আগেই খোদ প্রধানমন্ত্রী টুইটারে ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করে দিয়েছেন। আর তা নিয়েই ফের এক বার সঙ্ঘাতে তৃণমূল-বিজেপি। বুধবার সকালে ধূপগুড়ির দুর্ঘটনা নিয়ে টুইট করেন মোদী। তিনি লেখেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়ির ধূপগুড়িতে পথদুর্ঘটনার ঘটনা অত্যন্ত যন্ত্রণাদায়ক। শোকগ্রস্ত পরিবারগুলির জন্য প্রার্থনা করি। আহতরা তাড়াতাড়ি সেরে উঠুন।’ নিহতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ঘোষণা করে প্রধানমন্ত্রী লেখেন, ‘প্রধানমন্ত্রী জাতীয় ত্রাণ তহবিল থেকে পশ্চিমবঙ্গে দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারপিছু ২ লক্ষ টাকা করে দেওয়া হবে। আহতরা মাথাপিছু ৫০ হাজার টাকা করে পাবেন।’

জলপাইগুড়িতে এমনিতেই ভিত মজবুত বিজেপি-র। বুধবার ধূপগুড়িতে জনসভাও আছে তাদের। সে জন্য মঙ্গলবার রাত থেকে ফুলবাড়িতেই রয়েছেন বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নির্দেশে বুধবার সকাল হতেই তিনি ফুলবাড়ির থেকে ধূপগুড়ির দিকে রওনা দেন। স্থানীয় সূত্রের খবর, সেখান থেকে উত্তরবঙ্গ হাসপাতালে ভর্তি আহতদের দেখতে যাবেন দিলীপ। ধূপগুড়ির দুর্ঘটনা নিয়ে বিজেপি নেতৃত্বের এই তৎপরতা, অতি দ্রুততার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর ক্ষতিপূরণ ঘোষণা— এ সবের পিছনে ‘রাজনৈতিক কারণ’ আছে বলে মনে করছে তৃণমূল। এ নিয়ে সরাসরি বিজেপি-কে কটাক্ষ করে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বলেছেন, ‘‘ভোটের আগে চমক দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী! কোনও বিপদে আপদে এত দিন তাঁদের দেখা যেত না। কিন্তু এখন প্রচারের সামান্য সুযোগও তাঁরা হাতছাড়া করতে চান না।’’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here