এনডিএ? সে তো আডবাণীজির সময় ছিল, এখন ওটার কোনও অস্তিত্ব নেই: সঞ্জয় রাউত

0
kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: গত লোকসভা ভোটের পর থেকে যেন সাপের পাঁচ পা দেখে ফেলেছে বিজেপি। একাই ৩০৩টি আসন পেয়ে সংসারের বাকিদের আর সদস্য বলেই মনে করছে না। এমনটাই অভিযোগ এনডিএ শিবিরের বাকি শরিকদের। যার নমুনা দেখা গেল মহারাষ্ট্রে। বিপদ বাড়িয়ে ঝাড়খণ্ড বিধানসভা ভোটেও বিজেপির হাত ছেড়ে দিয়েছে জেডিইউ-এলজেপির মতো শরিকদলগুলি। এই অবস্থায় ন্যাশনাল ডেমোক্রাটিক অ্যালাইন্সের (এনডিএ) অন্যতম কর্তা অর্থাৎ শিবসেনার সাংসদ সঞ্জয় রাউত বলেছেন, আজকের এনডিএ আর আগের এনডিএ-র মধ্যে কোনও মিলই নেই।

রাউত বলেছেন, এনডিএ-র অস্তিত্বই এখন হারিয়ে গিয়েছে। কেননা এর প্রতিষ্ঠাতা লালকৃষ্ণ আডবাণী হয় ছেড়ে চলে গিয়েছেন, নাহলে নিষ্ক্রিয় হয়ে গিয়েছেন। সঞ্জয়ের কথায়- বালাসাহেব ঠাকরে, অটল বিহারী বাজপেয়ী, লালকৃষ্ণ আডবাণী এবং প্রকাশ সিং বাদল; এই চারজন মিলেই জোট গঠন করেছিলেন। এনডিএ যে কোনও দলের একার সম্পত্তি না সেটাও মনে করিয়ে দিয়েছেন তিনি।

‘এনডিএ-র অস্তিত্ব নিয়েই বড়সড় প্রশ্ন রয়েছে। কেননা এটা কোনও দলের একার মালিক নয়। নানা সময়ে নানা দল এই জোটে যোগ দিয়েছে। অনেক দলের তো মতাদর্শও এক ছিল না। তা সত্ত্বেও আমরা আলাদা হইনি। আর আগের এনডিএ থেকে এখনকার এনডিএ-র মধ্যে অনেক পার্থক্য তৈরি হয়েছে। এখন এনডিএ-র আহ্বায়ক কে এখন? এটার সবকিছুই ছিলেন আডবাণীজি।’ সংবাদ সংস্থা এএনআইকে পষ্টাপষ্টি জানান সঞ্জয় রাউত।

মূলত মহারাষ্ট্রে সরকার গঠন নিয়ে টালবাহানা শুরু হওয়ার পর থেকেই এই সংকট শুরু হয়েছে শিবসেনা ও বিজেপির মধ্যে। শীতকালীন অধিবেশনে ডাকা এনডিএ-র বৈঠকেও শিবসেনা যোগ দেবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে। সরকার গঠন ব্যর্থ হতেই এনডিএ-র একমাত্র মন্ত্রিও কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দিয়ে দিয়েছেন। ফলে শিবসেনাও যে এনডিএ-র জোটে আর বেশিদিনের শরিক নেই তাও স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে। তবে রাজনীতি সর্বদাই মহা অনিশ্চয়তার খেলা। এখানে কখন কী হয়, কেউ বলতে পারে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here