ডেস্ক: একা হোঁচট খাচ্ছে ঠিকই, তবে এনডিএ শরিকদের সঙ্গে নিয়ে অনায়াসে ম্যাজিক ফিগার টপকে যাচ্ছে বিজেপি। লোকসভা ভোট এগিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে এমন ইঙ্গিত মিলেছে সাম্প্রতিকতম সমীক্ষায়। মার্চ ও এপ্রিল মাসে সমীক্ষা চালিয়ে এমন তথ্য তুলে এনেছে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমগুলি।

ভোটপূর্ব সমীক্ষায় রাহুল গান্ধীর জন্য ইতিবাচক ফল অবশ্যই বয়ে আনছে। ২০১৪ সালের তুলনায় জাতীয় কংগ্রেসের আসন একধাক্কায় অনেকটাই বৃদ্ধি হওয়ার মুখে। গত লোকসভা আসনে কংগ্রেস মাত্র ৮৮টি আসন পায়। এবার আসন সংখ্যা বাড়ার সম্ভাবনা রইলেও তা বিজেপিকে পরাস্ত করার মতো যথেষ্ট নয় বলেই জানা যাচ্ছে।

সাম্প্রতিক সময়ে সংবাদ মাধ্যমগুলি যে সমীক্ষা প্রকাশ করেছে, তা এক পাতায় রাখলে পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে, হাওয়া এখনও বইছে বিজেপির দিকেই। বিশেষ করে পুলওয়ামা হামলার পর বালাকোটের এয়ার স্ট্রাইক; যা জনগণের মধ্যে অনেকটাই সাড়া ফেলেছে। তারই প্রতিফলন দেখতে পাওয়া যাচ্ছে এ যাবত সমীক্ষায়। কংগ্রেস ইউপিএ-র শরিক দলগুলিকে সঙ্গে নিয়ে সর্বাধিক ১৪০টি আসন পেতে পারে বলে ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছে। অন্যদিকে আঞ্চলিক শক্তিগুলি নির্নায়ক হবে বলে মনে করা হলেও সর্বাধিক ১২৯টি আসন ভাগে পাচ্ছে তারা। যার মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেস সহ সপা-বসপা জোট, বিজেডি, আরজেডি, টিডিপি, টিআরএসের মতো দলগুলি রয়েছে।

কিন্তু কোনও দলই যে একার ভরসায় ২৭২টি আসন ছুঁতে পারবে না, তা এক কথায় নিশ্চিত। কারণ হিসেবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার ক্ষেত্রে প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়াবে উত্তর প্রদেশ। সেখানে বুয়া-ভাতিজার জোটের সামনে গতবারের পাওয়া ৭১টি আসন ধরে রাখতে পারবে না বিজেপি। এক ধাক্কায় সেখানে আসন কমে ৩৬ স্কোর করতে পারে বিজেপি। অন্যদিকে সপা-বসপার জোট পেতে পারে ৪০টি আসন।

সব সমীক্ষা মিলিয়ে নির্বাচন শুরু হওয়ার আগের মুহূর্ত অবধি যা বোঝা যাচ্ছে, পুনরায় ক্ষমতায় ফেরা একপ্রকার নিশ্চিত এনডিএ শিবিরের জন্য।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here