anita
নেতাজি কন্যা অনিতা বসু পাফ।
anita
নেতাজি কন্যা অনিতা বসু পাফ।

মহানগর ডেস্ক: ‘নেতাজি মনেপ্রাণে হিন্দু হলেও তিনি অন্যান্য ধর্মকেও সমান শ্রদ্ধা এবং সম্মান করতেন’, ঠিক এইভাবেই নেতাজির সর্বধর্ম সমন্বয়ের আদর্শ সংবাদমাধ্যমের সামনে তুলে ধরলেন সুভাষ কন্যা অনিতা বসু পাফ।

ছোটবেলায় বাবার সঙ্গ পাননি কিন্তু তাঁর বাবার বীরগাথা শুনে বড় হওয়া অনিতার কাছে নেতাজি সমাজের আইকন। সেখানে তুচ্ছ রাজনীতির কোনও স্থান নেই বলেই অভিমত তাঁর। তবে, এখন ভোট-বাজারে তাঁর পিতার ঐতিহ্য বহন করার জন্য বিভিন্ন  রাজনৈতিক দলের হুড়োহুড়ি সম্পর্কেও বিলক্ষণ ওয়াকিবহাল অনিতা বসু পাফ।

এই বিষয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘‘বেশ তো, আমার বাবার নাম বা আদর্শ বহন করে সব দলের ভাল কাজের প্রতিযোগিতা হোক না!’’
তখনও কলকাতায় নেতাজি-জয়ন্তীর অনুষ্ঠানে দেখা হয়নি নরেন্দ্র মোদী ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। অনিতা বলেন, ‘‘ভোটের বছরে, সব দলই আমার বাবার নামে কর্মসূচি পালন তো করতেই পারে!’’ ভোট-বাজারে নেতাজি কোন দলে যোগ দিচ্ছেন? এমন রসিকতা চললেও ভারতের সমকালীন রাজনীতির আবহে সুভাষচন্দ্রের ছায়া পড়া অস্বাভাবিক বলে দেখছেন না অনিতা। তবে তিনি স্পষ্ট বলছেন, ‘‘আমার বাবা সব ধর্মের মানুষ, সব ভারতীয়কে সঙ্গে নিয়ে দেশপ্রেমের আদর্শ মেলে ধরেছিলেন। বিজেপি-র মধ্যে ধর্মীয় সহিষ্ণুতার আদর্শের ঘাটতি আমার বাবার আদর্শের সঙ্গে মেলে না।’’

শুধু ভারত নয়, বাংলার সংস্কৃতির মূল সুরও হিন্দু-মুসলিম সমন্বয়ের উপরে দাঁড়িয়ে বলেই সুভাষ-কন্যার অভিমত। তাঁর কথায়, ‘‘আমার জেঠামশাই (শরৎচন্দ্র বসু) দুই বাংলার বিভাজনের বিরুদ্ধে ছিলেন। শিল্প, সঙ্গীতে পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের মিল চোখে পড়ার মতো। এই মিলটাই বাংলার সংস্কৃতি। সুভাষচন্দ্রের নামে কোনও অবস্থায় সাম্প্রদায়িক সংঘর্ষ চলতে পারে না।’’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here