নিজস্ব প্রতিনিধি : আমফান নিয়ে ওঠা দুর্নীতির তদন্ত হবে। অন্তত এমনই আশ্বাস দিলেন নয়া খাদ্যমন্ত্রী রথীন ঘোষ। একটি সংবাদ মাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে এমনই ইঙ্গিত দেন তিনি।

গত বছর লকডাউনের মধ্যেই আমফান ঝড়ে বেসামাল হয়ে যায় রাজ্য। গাছ উপড়ে, তারখুঁটি পড়ে, চাষের জমিতে লোনা জল ঢুকে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হন রাজ্যবাসী। পরিস্থিতি সামাল দিতে আসরে নামে সরকার। ঘোষণা হয় ক্ষতিপূরণ। অভিযোগ, ব্যাপক দুর্নীতি হয় ক্ষতিপূরণ বিলিতে।

আমফানের সময় খাদ্য দফতরের মন্ত্রী ছিলেন উত্তর ২৪ পরগনার জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। মূলত তাঁর দফতরের বিরুদ্ধেই অভিযোগ ওঠে। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, সেই কারণেই এবার আর খাদ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়নি জ্যোতিপ্রিয়কে। তাঁর বদলে খাদ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয় মধ্যমগ্রামের বিধায়ক রথীন ঘোষকে। স্বচ্ছ ভাবমূর্তির রথীনের ওপরই এবার ভরসা করছেন তৃণমূল নেত্রী।

আমফান দুর্নীতিকে চলতি বিধানসভা নির্বাচনে ইস্যু করে বিজেপি। গেরুয়া শিবিরের ছোট-বড়-মেজ-সেজ সব নেতাই তৃণমূল বধে হাতিয়ার করেন আমফান দুর্নীতিকে। তার পরেও অবশ্য হাসতে হাসতে জয়ী হন তৃণমূল প্রার্থীরা। আমফান ইস্যু যে তৃণমূলের পক্ষে ব্যুমেরাং হয়নি, দিকে দিকে দলীয় প্রার্থীদের জয়ের খবরই তার প্রমাণ।

তবে আমফান দুর্নীতি নিয়ে যে মমতার সরকারের ভাবমূর্তি কিছুটা হলেও টোল খেয়েছে, আবডালে তা মেনে নিচ্ছেন তৃণমূল নেতাদের একাংশও। সেই কারণেই খাদ্যমন্ত্রী পদে মন্ত্রিসভায় নবাগত রথীনের অভিষেক বলেও দাবি তাঁদের। এখন দেখার, নয়া খাদ্যমন্ত্রী কবে নির্দেশ দেন আমফান দুর্নীতির তদন্তের! কেঁচো খুঁড়তে কেউটে বের হয় কিনা, তাও দেখার।     

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here