কাজ হারানো ৪১৯ জনকে পুনর্বহাল করতে হাওড়া পুরসভায় নতুন স্কিম

0
kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: হাওড়া পুরসভায় কাজ হারানো ৪১৯ জন অস্থায়ী চুক্তিভিত্তিক কর্মীকে পুনরায় কাজে নিয়োগ করতে স্কিম তৈরি করে পুর দফতরে পাঠানো হল। সবুজ সঙ্কেত এলেই তাঁদের কাজে নিয়োগ করা হবে বলে জানালেন কমিশনার। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে কয়েকদিন আগে হাওড়া পুরভবনে এসে রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছিলেন, যে ৪১৯ জন অস্থায়ী কর্মীকে বসিয়ে দেওয়া হয়েছিল, তাঁদের ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণের কাজে পুনর্বহাল করা হল। তিনি জানান, একটি স্কিমের মাধ্যমে ৪১৯ জনকে নিয়োগ করা হল।

৪১৯ জন অস্থায়ী কর্মীকে পুরমন্ত্রী ‘মৌখিক ভাবে’ নিয়োগের ঘোষণা করে যাওয়ার পরেও এখনও সম্পূর্ণ অন্ধকারে রয়েছেন ওই ৪১৯ জন কর্মী। তবে পুর দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, পুরমন্ত্রীর নির্দেশ মতো হাওড়া পুর কমিশনার বিজিন কৃষ্ণা চাকরিতে নিয়োগের ব্যাপারে বৃহস্পতিবার একটি পরিকল্পনা পাঠিয়েছেন। সেই পরিকল্পনা পুর দফতরের অনুমোদন পেয়ে অর্থ দফতরে কবে যাবে, সেদিকে তাকিয়ে রয়েছেন সবাই।

গত ১৩ নভেম্বর আচমকাই পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম হাওড়া পুরসভায় এসে জানিয়েছিলেন, ৪১৯ জনকে বিশেষ স্কিম করে স্পেশ্যাল সুপারভাইজার পদে নিয়োগ করা হল। এদের স্বাস্থ্য এবং সাফাই বিভাগে ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণ-সহ অন্যান্য কাজে লাগানো হবে। মন্ত্রীর এই ঘোষণার পরদিনই হাওড়ায় শরৎ সদনে জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের নেতৃত্বে ডেঙ্গি সংক্রান্ত একটি কর্মশালা হয়। সেখানে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় ওই ৪১৯ জনকে। কিন্তু তারপর থেকেই পুরসভায় প্রতিদিন এলেও এরা অর্ডারের কপি হাতে পাননি। এবিষয়ে অস্থায়ী কর্মীদের পক্ষ থেকে শ্রীনিবাস বসু বলেন, ‘আমরা অন্ধকারে আছি। কী সিদ্ধান্ত নেওয়া হল, তা জানতে পারছি না, বুঝতেও পারছি না।’

এদিকে, এই ৪১৯ জন শিক্ষিত বেকারকে নিয়ে রাজ্য সরকার এবং পুরসভার এই ভূমিকায় ক্ষোভ জমেছে তৃণমূল শাসিত হাওড়া পুর কর্মচারিদের মধ্যেও। পুর কর্মচারী ইউনিয়নের এক নেতা বলেন, ‘এই ৪১৯ জন কর্মীর মধ্যে অনেক উচ্চশিক্ষিত ছেলেমেয়ে আছেন। তাঁদের নিয়ে ছিনিমিনি খেলা ঠিক হচ্ছে না।’

উল্লেখ্য, প্রায় এক বছর কাজ করার পর মাত্র চার মাসের বেতন দেওয়া হয়। এরপরেই তাঁদের বসিয়ে দেওয়া হয়। পুর কমিশনার বলেন, ‘ওই ৪১৯ জনের ব্যাপারে একটা স্কিম তৈরি করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সেটি পুরদফতরে পাঠানো হয়েছে। সবুজ সঙ্কেত পাওয়ার পর আমরা ওই অস্থায়ী চুক্তিভিত্তিক কর্মীদের কাজে নিয়োগ করব।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here