মহানগর ওয়েবডেস্ক: আইসিস যোগের অভিযোগে বেঙ্গালুরুর একটি মেডিক্যাল কলেজ থেকে এক অপথালামোলজিস্টকে গ্রেফতার করল ন্যাশানাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি। ওই চোখের ডাক্তারের বিরুদ্ধে আইসিসের জঙ্গিদের মেডিক্যাল সহায়তা দেওয়ার অভিযোগ করেছে এনআইএ।

আব্দুর রহমান নামে বছর আঠাশের ওই ডাক্তার এমএস রামিয়া মেডিক্যাল কলেজের সঙ্গে যুক্ত। ইসলামিক স্টেট খোরাসান প্রভিন্স (আইএসকেপি) কেসে তাকে গ্রেফতার করেছে এনআইএ। চলতি বছর মার্চে দিল্লির জামিয়া নগর থেকে জাহানজাইব সামি ওয়ানি ও তার স্ত্রীকে আটক করে দিল্লি পুলিশ। তারপরেই দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেল প্রথম এই আইএসকেপি কেস রেজিস্টার করে।

এই আইএসকেপি হল আইসিস মদতপুষ্ট একটি সংগঠন। তারা ভারতে জঙ্গি কার্যকলাপ ও আইসিসের প্রভাব বিস্তারের জন্য দায়ী। ওই দম্পত্তি আইসিসের আবু ধাবি মডিউলের সদস্যর সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছিল। তাকেও গ্রেফতার করে এনআইএ। সংস্থার মুখপাত্র সোনিয়া নারাঙ জানান, ‘জিজ্ঞাসাবাদের সময় আব্দুর তার আইসিস যোগের কথা স্বীকার করেছে। সে আইসিস জঙ্গিদের মেডিক্যাল সহায়তার জন্য একটি এপ্লিকেশন তৈরি করেছিল।’

তদন্তে এনআইএ জানতে পেরেছে, ২০১৪ সালে আব্দুর একবার সিরিয়া গিয়ে আইসিস ক্যাম্পে ছিল দশদিন। তাকে গ্রেফতারের পর তার মোবাইল ফোন, ল্যাপটপও বাজেয়াপ্ত করেছে এনআইএ। এছাড়া, আইসিস ও আইএসকেপি যোগের অভিযোগে পুনের দুই বাসিন্দা সাদিয়া আনোয়ার শেখ ও নাবিল সিদ্দিক খাত্রীকেও গ্রেফতার করেছে এনআইএ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here