মহানগর ওয়েবডেস্ক: ২০১৪ সালের খাগড়াগড় কাণ্ডে আরও দুজনকে দোষী সাব্যস্ত করল ন্যাশানাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সির বিশেষ আদালত। তাদের দুজনকে সাত বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়েছে। সেই সঙ্গে আর্থিক জরিমানাও করা হয়েছে। ওই দুজনের নাম মুস্তাফিজুর রহমান ও কাদের কাজী।

সরকারি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, রহমান, যাকে ২০১৮ সালের ২৬ ডিসেম্বর আটক করা হয়েছিল, তাকে সাত বছরের কারাদণ্ড ও ৫০০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২০বি, ১২৫, ইউএপিএ -এর ১৮, ১৮এ, ১৮বি, ১৯, ২০ ধারা অনুযায়ী সে দোষী সাব্যস্ত হয়েছে।

অন্যদিকে, ২০১৯ সালে ২৮ জানুয়ারি গ্রেফতার হওয়া কাজীকেও সাত বছরের কারাদণ্ড ও ৫০০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২০বি, ১২৫, ইউএপিএ -এর ১৮, ২০ ধারা অনুযায়ী সে দোষী সাব্যস্ত হয়েছে।

২০১৪ সালের ২ আগস্ট বেলা ১২ টা ১৫ মিনিটে কেঁপে উঠেছিল খাগড়াগড়ের হাসান চৌধুরীর বাড়ি। বাড়িটি ভাড়া দিয়েছিলেন তিনি। সেই বাড়িরই দোতলায় হয় প্রচণ্ড বিস্ফোরণ। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় শাকিল আহমদ ওরফে শাকিল গাজির। পরদিন ওই বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় ৫৫ টি সকেট বোমা, প্রচুর বিস্ফোরক ও জঙ্গি গোষ্ঠীর লিফলেট। শুরু হয় তদন্ত। প্রথমে জেলা পুলিশ, তারপর সিআইডি এবং শেষে তদন্তভার নেয় এনআইএ। তদন্তের স্বার্থে দিল্লি থেকে উড়ে খাগড়াগড়ে এসেছিলেন এনএসএ প্রধান অজিত ডোভাল, এনআইএ প্রধান শরদ কুমার ও এনএসজি প্রধান জে এন চৌধুরী। সেই কাণ্ডে ৩৩ জন অভিযুক্তের মধ্যে ২৮ জনকে ইতিমধ্যেই দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here