মহানগর ওয়েবডেস্ক: ধর্ষণের মতো নারকীয় ঘটনা আজও সমাজে অভিশাপস্বরূপ বিরাজ করছে। ভারত তো বটেই বিশ্বজুড়ে এই অপরাধের বহর ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী। নৃশংস এহেন অপরাধের বিরুদ্ধে এবার কড়া পদক্ষেপ নিল নাইজেরিয়ার সরকার। মাত্র সাত বছরের এক শিশুকে ধর্ষনের মত ন্যাক্কারজনক ঘটনায় দোষীর যৌনাঙ্গ অস্ত্রপ্রচার করে কেটে বাদ দেওয়ার নির্দেশ দিল নাইজেরিয়ার একটি প্রদেশের সরকার। ধর্ষকের বিরুদ্ধে এহেন করা পদক্ষেপে খুশি সেখানকার সাধারণ মানুষ।

সংবাদ মাধ্যম সূত্রে খবর নাইজেরিয়ার কাদুনা প্রদেশে সাত বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনায় রীতিমতো ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন স্থানীয় মানুষ। এরপরই ধর্ষকের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিতে উঠেপড়ে লাগে সরকার। আনা হয় নয়া আইন। সেই আইন অনুযায়ী, ১৪ বছরের কম বয়সি শিশুকে ধর্ষণ করলে মৃত্যুদণ্ডের শাস্তি দেওয়া হবে দোষীকে। তার আগে অস্ত্রোপচার করে তার শুক্রথলি কেটে ফেলা  হবে। অন্যান্য ক্ষেত্রে রাসায়নিক প্রয়োগ করে যৌনক্ষমতা নষ্ট করে দেওয়া  হবে। সরকারের তরফে দাবি করা হয়েছে নতুন এই আইন দেশে শিশু ধর্ষণের মতো ন্যক্কারজনক অপরাধ রোধ করতে সক্ষম হবে। তবে আইনের মাপকাঠিতে কাকে মৃত্যুদণ্ডের সাজা দেওয়া হবে আর কার যৌনাঙ্গ বাদ দেওয়া হবে সে বিষয়ে স্পষ্ট ভাবে কিছু জানানো হয়নি।

তবে সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, পুরুষ ধর্ষকদের ক্ষেত্রে রাসায়নিক প্রয়োগ ও যৌনাঙ্গ অস্ত্রোপচার করে বাদ দিয়ে দেওয়া হবে। মহিলা ধর্ষণকারীর ক্ষেত্রে কেটে বাদ দেওয়া হবে ফেলোপাইন টিউব। প্রসঙ্গত, ৩.৫ মিলিয়ন শিশুর বাস নাইজেরিয়াতে। এবং এই দেশ এই শিশু ধর্ষণের হার সবচেয়ে বেশি। গত মে মাসে এখানে ৮০০টি যৌন হিংসার মতো ঘটনা ঘটেছে। এমন একটি পরিস্থিতিতে কড়া আইনের মাধ্যমে নৃশংস এই অপরাধ বন্ধ করতে উদ্যোগী হল সরকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here