ডেস্ক: ভারত জুড়ে ক্রমশ ডানা বিস্তার করছে মারণ ভাইরাস নিপা। ইতিমধ্যেই কেরলে এই ভাইরাস ছড়ানোয় আতঙ্কে রয়েছেন মানুষ। ইতিমধ্যেই মৃত্যু হয়েছে ১১ জনের। কিন্তু মারণ ভাইরাসের প্রকোপ কম হওয়ার বদলে যেন ক্রমশ বেড়েই চলেছে। এই কারণে ইতিমধ্যেই হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে ছত্তিশগড়ে। এই রাজ্যের স্বাস্থ্য আধিকারিকেরা সন্দেহ করছেন, কেরল থেকে ছত্তিশগড়েও হানা চালিয়েছে নিপা। ফলে সাধানতা অবলম্বের সঙ্গে সঙ্গে সংক্রমণ আটকাতেও একাধিক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে।

এই সাবধানতা বিশেষভাবে অবলম্বন করতে বলা হয়েছে কেরল থেকে ফেরত আসা পর্যটকদের। এছাড়াও, কেরল থেকে আমদানি হওয়া ফলমূলের উপরও কড়া পর্যবেক্ষণ চালানো হচ্ছে। সোমবার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের এই বৈঠকের পরই হাই অ্যালার্ট জারি করা হয় এই রাজ্যে। প্রসঙ্গত, উত্তরপ্রদেশের বহু মানুষ বিশেষ করে এই গরমের সময়ই কেরলে ছুটি কাটাতে যান। তারা যাতে কোনও ভাবে এই ভাইরাস বহন করে না আনেন সেই জন্যই জারি হয়েছে এই অ্যালার্ট।

অন্যদিকে, নিপা নিয়ে তটস্থ হয়ে রয়েছে খোদ বাংলাও। বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালেও এই মারণ রোগ নিয়ে এক ব্যক্তি ভর্তি রয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। এর মধ্যে কেরল থেকেই উঠে এসেছে একটি হৃদয় বিদারক ঘটনা। জানা গিয়েছে, নিপা আক্রান্তদের যারা চিকিৎসা করছেন সেসব নার্সদের কার্যত একঘরে করে দিয়েছে কেরলের জনগণ। তাঁদের কোনও বাস, গাড়ি, অটোরিক্সা ভাড়া তুলতে চাইছে না। এমনকি খোদ তাদের পরিবারের লোকজনও তাদের নিজের কাছে ঘেষতে দিচ্ছে না। ভাইরাসের আতঙ্ক এতটাই ছড়িয়েছে যে এই রোগে মৃত ব্যক্তিদের মৃতদেহ সৎকার করার মানুষও পাওয়া যাচ্ছে না।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here