nirbhaya case update

মহানগর ওয়েবডেস্ক: শুক্রবার সকালেই ফাঁসি হওয়ার কথা রয়েছে নির্ভয়ার দোষীদের। কিন্তু তার আগের দিনই পাটিয়ালা হাউস কোর্টে দেখা গেল হাইভোলেন্ট নাটক। বৃহস্পতিবার শুনানি চলাকালীন চার দোষীদের অন্যতম অক্ষয় ঠাকুরের স্ত্রী পুনিতা দেবীকে আদালতের বাইরে বসে একপ্রস্থ নাটক করতে দেখা যায়। কখনও সে অজ্ঞান হয়ে উল্টে পড়ে। কখনও বা বুক চাপড়ে কাঁদতে থাকে। শুধু তাই নয়, তাঁর আসামী স্বামী নির্দোষ বলেও দাবি করতে থাকে সে।

অক্ষয়ের স্ত্রী বিধবা হয়ে বাকিটা জীবন কাটাতে চায় না। সেই কারণে ইতিমধ্যেই বিবাহ-বিচ্ছেদ মামলা সে দায়ের করেছে। এদিন এসলাসে দুপক্ষের তর্কের পর রায় নিজের কাছে সুরক্ষিত রেখে দেয় আদালত। অন্যদিকে অক্ষয়ের স্ত্রী পুনিতা অজ্ঞান হওয়ার আগে বলতে থাকে, আমাদের নাবালক ছেলেকেও ফাঁসি দেওয়া হোক। ‘আমারও ন্যায় চাই। আমাকেও মেরে ফেলো। বাঁচতে চাই না আমি। আমার স্বামী সম্পূর্ণ নির্দোষ। কেন গোটা সমাজ ওর পিছনেই পড়ে রয়েছে? আশায় আছি কবে ন্যায় পাবো, কিন্তু সাত বছর ধরে রোজ মরতে হচ্ছে।’

 

এখানেই নাটক শেষ হয়নি অক্ষয়ের স্ত্রী’র। এরপর নিজের স্যান্ডেল তুলেই নিজেকে মারতে শুরু করে সে। সেই সময় কয়েকজন আইনজীবী এসে তাকে বুঝিয়ে শান্ত করে। তবে এদিন আদালয়ে নির্ভয়ার পরিবারের তরফে ফের একবার স্পষ্ট কর দেওয়া হয়, দোষীদের তারা একটুও ক্ষমাঘেন্না করবে না। নির্ভয়ার পরিবারের আইনজীবী বলেন, ‘অক্ষয় আমাদের সমাজের অংশ এটা ঠিক। অপ্রাকৃতিক মৃত্যুতে সবারই কষ্ট হয় কিন্তু অক্ষয়ের মামলায় আমরা কোনও রকমে নমনীয়তা দেখাবো না।

অন্যদিকে আগামীকালই নির্ভয়া মামলার চার দোষী পবন গুপ্ত, বিনয় শর্মা, অক্ষয় ঠাকুর এবং মুকেশ সিংয়ের ফাঁসি হওয়ার কথা রয়েছে তিহার জেলে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here