national news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: ফাঁসি পিছনোর চেষ্টা শুরু থেকেই করে আসছে নির্ভয়া কাণ্ডের দোষীরা। এই নিয়ে তিনবার সফলও হয়েছে তারা। এর পুরো কৃতিত্ব অবশ্যই তাদের আইনজীবীর। কিন্তু এবার কি ফাঁসি পিছনোর জন্য ফন্দি আঁটছে দোষীর স্ত্রীও? বিবাহবিচ্ছেদ চেয়ে এবার আদালতের দ্বারস্থ হচ্ছে নির্ভয়া কাণ্ডের অন্যতম দোষী অক্ষয় ঠাকুরের স্ত্রী। তার দাবি, ফাঁসি হওয়ার আগে তিনি বিবাহবিচ্ছেদ চান, তাকে বিচ্ছেদ দেওয়া হোক! এই ঘটনায় স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে, এতদিন ধরে তাহলে কি চূড়ান্ত সময়ের জন্য অপেক্ষা করেছিলেন তিনি?

আদালতে আর্জি জানিয়ে অক্ষয় ঠাকুরের স্ত্রী দাবি করেছেন, তিনি একজনের বিধবা হয়ে বাকি জীবন কাটাতে চান না। তার স্বামীর ফাঁসি হবে ২০ মার্চ, তার আগে তিনি বিবাহবিচ্ছেন চান। আদালতে এই মামলার শুনানি হওয়ার কথা ১৯ মার্চ, অর্থাৎ ফাঁসির আগের দিন। অক্ষয়ের স্ত্রী আরও দাবি করেন, তাঁর স্বামী একেবারেই নির্দোষ, সে কিছুই করেনি। কিন্তু যেহেতু তার ফাঁসি হচ্ছে তাই তিনি এই বৈবাহিক সম্পর্ক রাখতে চান না।

অক্ষয়ের স্ত্রী পুনিতার আইনজীবী জানিয়েছেন, তাঁর মক্কেলের বিবাহবিচ্ছেদ চাওয়ার পূর্ণ অধিকার রয়েছে, সেই কারণেই তারা এই আর্জি আদালতকে জানিয়েছেন। হিন্দু বিবাহ আইনের ১৩(২)(II) ধারায় এই অধিকার তিনি পান বলেও জানান তিনি। প্রসঙ্গত, নির্ভয়া কাণ্ডের ৪ দোষী মুকেশ, পবন, অক্ষয় এবং বিনয়ের ফাঁসির দিন হিসেবে ২০ মার্চকে ঘোষণা করা হয়েছে। এদিন ভোরে তাদের ফাঁসি হওয়ার কথা। যদিও বলা হচ্ছে, সমস্ত আইনি কাজ সম্পন্ন হয়েছে তাই এইবার ফাঁসি পিছনোর কোনও কারণ নেই। কিন্তু কিঞ্চিত একটা অস্বস্তি রয়েই যাচ্ছে দেশবাসীর।

এই চিন্তার কারণ, শীর্ষ আদালতের মৃত্যুদণ্ডের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে আন্তর্জাতিক আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন নির্ভয়া দোষীদের আইনজীবী এপি সিং। আন্তর্জাতিক আদালতের কাছে তাঁর আর্জি মৃত্যুদণ্ড থেকে রেহাই দেওয়া হোক নির্ভয়াকাণ্ডের ধর্ষক ও খুনিদের। এই আর্জি যদিও ধোপে টিকবে না বলে মত বিশেষজ্ঞদের। অন্যদিকে আবার, দিল্লির আদালতে আরও এক নতুন আবেদন করে নির্ভয়ার এক ধর্ষক জানিয়েছে, সে নাকি ঘটনার দিন দিল্লিতেই ছিল না! দোষী মুকেশ সিং-এর আইনজীবী এই আবেদন করে ফাঁসি রুখতে এখন প্রচণ্ড উদ্যোগ নিচ্ছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here