ডেস্ক: এনআরসি চালু করে ভারতে বসবাসকারী অবৈধ বাংলাদেশি ও মুসলিমদের দেশছাড়া করতে উদ্যোগী হয়েছে বিজেপি। এই স্বার্থে অসমে এনআরসিও করেছে তারা। এই পদক্ষেপে তীব্র বিরোধীতার মুখে পড়েছে নরেন্দ্র মোদী সরকার। লক্ষ লক্ষ মানুষের নাম এনআরসি তালিকা থেকে বাদ যাওয়ায় রাতারাতি তারা উদ্বাস্তুতে পরিণত হয়েছে। অসম ছাড়াও অন্য সব রাজ্যে এনআরসি করা নিয়ে আওয়াজ তুলেছে বিজেপি। অবৈধ বাংলাদেশিদের তাড়াতে নিশানা হয়েছে বাংলাও। এবার সেই ইস্যুতে মুখ খুললেন ওপার বাংলার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ভারতে অবৈধ বাংলাদেশি বসবাসের বিষয় নিয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ভারতবর্ষে কোনও এমন বাংলাদেশি নেই যারা অবৈধভাবে বসবাস করছে। এমনকি এই ইস্যুতে গুজব ছড়ানো হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। তাঁর দাবি, তাঁদের দেশের কোনও মানুষ অবৈধভাবে বসবাস করছেন না। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কথা তুলেও তিনি বলেন, তাঁকে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে কাউকে দেশে ফেরত পাঠানো হবে না। তিনি আরও বলেন, এই বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর আলোচনাও হয়েছে এবং ভারত-বাংলাদেশ আর্থিক সম্পর্ক দৃঢ় করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, অসমে এনআরসি-র কারণে রাতারাতি প্রায় ৪০ লক্ষ মানুষ ঘরছাড়া হন। এনআরসি-র যে তালিকা প্রকাশ হয় সেই তালিকা নিয়েই বিস্তর বিতর্ক বাঁধে। এমন কিছু ব্যক্তির নাম তালিকা থেকে বাদ যায় যাঁরা রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বও। কংগ্রেস সহ সমস্ত বিরোধী দল বিজেপির এই পদক্ষেপে সরব হয়। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও এনআরসি ইস্যু নিয়ে বিজেপিকে তোপ দাগেন। কিন্তু নিজেদের জায়গা থেকে এক ধাপও নড়েনি পদ্মবাহিনী। এমনকি হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে অসমের পর মহারাষ্ট্র, ত্রিপুরা ও পরে বাংলাতেও এনআরসি করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here