মহানগর ওয়েবডেস্ক: সামনে একুশের বিধানসভা নির্বাচন। এহেন সময় কোমর বেঁধে লড়াই করা তো দূরের কথা ঘরের মধ্যেই অন্তর্দ্বন্দ্বে জর্জরিত বিজেপি শিবির। বিজেপি সূত্রে শোনা যায় গেরুয়া শিবিরের অন্দরেই অবস্থান করছে দুটি শিবির মুকুল এবং দিলীপ। তবে নির্বাচন পূর্বে ভাগাভাগি ও অন্তর্দ্বন্দ্বের গুরুতর এই অবস্থা কাটিয়ে একত্রে পথ চলার নির্দেশ দিয়ে দিলেন সর্বভারতীয় বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা। রবিবার দিল্লিতে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের সঙ্গে বৈঠকের পর তিনি এমন নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে।

রাজ্য বিজেপির অন্দরে দিলীপ ও মুকুল নামের দুটি আলাদা শিবির তৈরি হয়েছে তার কানাঘুষো ছিল নানান জায়গা থেকে। এরই মাঝে এক সাংবাদিক বৈঠকে দিলীপ ঘোষের পরোয়া করি না মন্তব্য সেই গুঞ্জনকে পুরোপুরি সীলমোহর দেয়। রুদ্র মূর্তি ধারণ করে দিলীপ বলেন, ‘ আমি বুকে পা দিয়ে রাজনীতি করতে এসেছি। যে সামনে আসবে, তার বুকে পা দিয়ে রাজনীতি করব। বাংলার পরিবর্তন দিলীপ ঘোষ একা করতে পারবে। কারও যদি আত্মবিশ্বাস, বিশ্বাস না থাকে, বাড়িতে বসে থাকুক। আমাদের মুখ্যমন্ত্রী হলে ওরা যেন মিষ্টি খেতে আসে।’ দিলীপের এই ‘একাই একশো’ সূচক মন্তব্য ভালো চোখে নেননি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। বঙ্গ রাজনীতিকে যে গন্ডগোল শুরু হয়েছে তা বেশ বুঝতে পারেন তারা। স্বাভাবিকভাবেই পরিস্থিতি সামাল দিতে দিল্লিতে ডাক পড়েছিল দিলীপ ঘোষের। সেখানে বৈঠক সেরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘সঙ্গে নিয়ে একত্রে কাজ করতে বলেছেন নাড্ডাজি। ক্ষেত্রে লড়াই করেই বিধানসভা ভোট দিতে হবে আমাদের।’

দিলীপ ঘোষের এহেন মন্তব্যের পর এটা বুঝে নিতে খুব বিশেষ অসুবিধা হয় না যে, বঙ্গ বিজেপিতে চলতে থাকা গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নিয়ে শীর্ষ নেতৃত্বের কাছে খানিক বকা খেয়েছেন দীলিপবাবু। কারণ নাড্ডাজির সঙ্গে বৈঠকের খানিক আগেই দিল্লিতে এক বৈঠকে বেপরোয়াভাবে দেখা গিয়েছিল রাজ্য বিজেপি সভাপতির কথায়। তিনি বলেন, ‘দিলীপ ঘোষ সর্বদা ফ্রন্টফুটে খেলে। কারও পরোয়া করে না, কারও দয়ায় রাজনীতি করে না। লড়াই হলে রাস্তায় দাঁড়িয়ে হোক। পার্টির মধ্যে লড়াই করে লাভ নেই।’ এহেন দিলীপ ঘোষের জেপি নাড্ডার সঙ্গে বৈঠকের পর মিষ্টি সুরেলা মন্তব্য বেশ ভিন্নধর্মী ঠেকেছে অনেকের। কারণটা বুঝতে অবশ্য অসুবিধা হয় না। গত একমাস ধরে রাজ্য বিজেপি তে যা চলছে তা নিয়ে বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে অভিযোগ জানিয়ে এসেছেন একাধিক সাংসদ।

এই সব কিছুর মাঝেই রবিবার কলকাতা উড়ে এসেছেন রাজ্য বিজেপি পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়। তার আগমন যে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব সামাল দিতেই তা বোধহয় আলাদা করে আর বলার প্রয়োজন পড়ে না। এদিকে বিজেপি সূত্র জানায় যাচ্ছে রবিবারের বৈঠকে মুকুল রায়কে সঙ্গে নিয়েই কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে দিলীপ ঘোষকে। বিজেপির দলীয় সূত্রে খবর, এবারের বিধানসভা নির্বাচন দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বেই লড়বে বিজেপি। তবে দলের অন্দরে কিছু পরিবর্তন অবশ্যম্ভাবী হয়ে উঠেছে। শীঘ্রই সেই পরিবর্তন সম্পন্ন করে নব উদ্যমে বাংলা দলের লড়াই ঝাঁপিয়ে পড়বে গেরুয়া শিবির।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here