nirbhaya convicts

মহানগর ওয়েবডেস্ক: দীর্ঘ আট বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটল। ২০১২ সালের সেই অভিশপ্ত রাতের খলনায়করা ফাঁসিকাঠে ঝুলল তিহাড় জেলে। তবে এদিনও যাতে ফাঁসি না হয় সেই চেষ্টা মধ্যরাত পর্যন্ত চালিয়েছিল ধর্ষকরা। মধ্যরাতে, প্রায় ৩টের সময় শেষ পুনর্বিবেচনার আর্জি খারিজ হয়ে সুপ্রিম কোর্টে। আর্জি খারিজ হওয়ার দু ঘণ্টার মধ্যেই ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেওয়া হয় চার পাষণ্ড অক্ষয় ঠাকুর, পবন গুপ্ত, বিনয় শর্মা ও মুকেশ সিংকে।

ফাঁসি হয়ে যাওয়ার পর ওই চারজনের দেহ ইতিমধ্যেই ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। দীন দয়াল উপাধ্যায় হাসপাতালে এই পোস্ট মর্টেম হবে বলে জানা গিয়েছে। একবার পোস্ট মর্টেম প্রক্রিয়া শেষ হলে তাদের পরিবারের হাতে দেহ তুলে দেওয়া হবে। চার দোষীর মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পরই তিহাড় জেলের ডিজি জানান, কেউই নিজেদের কোনও শেষ ইচ্ছে প্রকাশ করেনি।

এর আগে ২২ জানুয়ারি, ১ ফেব্রুয়ারি এবং ৩ মার্চ স্থির হয়েছিল ফাঁসির দিনক্ষণ। কিন্তু আইনি জটে পিছিয়ে যায় সেই প্রক্রিয়া। এরপর গত ৫ মার্চে চতুর্থবারের মত জারি করা নতুন মৃত্যুপরোয়ানায় ফাঁসির দিন নির্ধারণ করা হয় ২০ মার্চ। ২০১২ সালের ১৬ ডিসেম্বর দিল্লির রাস্তায় চলন্ত বাসে প্যারামেডিক্যালের এক তরুণীকে ধর্ষণ এবং পরে হাসপাতালে তার মারা যাওয়ার ঘটনা গোটা ভারতে আলোড়ন তুলেছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here