মহানগর ওয়েবডেস্ক: করোনাকালে পড়ুয়াদের চাপ কমাতে সিলেবাসে কাটছাঁট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয়। তবে যে বিষয়গুলি কেটে বাদ দেওয়া হচ্ছে, সেখানে এমন কিছু অধ্যায় রয়েছে যা বিতর্ক সৃষ্টি করছে। কেন্দ্র যখন এই পদক্ষেপ নিয়েছিল তখন যেমন বিতর্ক হয়েছিল। এবার অসম বিজেপি সরকারের সিদ্ধান্ত একই ধরনের ঘটনার প্রতিফলন লক্ষ্য করা গিয়েছে।

সম্প্রতি পড়ুয়াদের ওপর থেকে চাপ কমাতে ক্লাস ১২- এর সিলেবাসের ৩০% ছাটার সিদ্ধান্ত নিয়েছে অসম বিজেপি সরকার। যে চ্যাপ্টারগুলি ছাটা হয়েছে, তারমধ্যে পন্ডিত জওহরলাল নেহেরুর জীবনী, 2002 সালের গুজরাট দাঙ্গা নিয়ে মন্ডল কমিশনের রিপোর্ট, এবং বর্ণবাদ নিয়ে লেখা একটি চ্যাপ্টার বাদ দেওয়া হয়েছে। সিলেবাস থেকে যে যে অংশগুলি বাদ পড়েছে, তা গতকাল অসম হায়ার সেকেন্ডারি এডুকেশন কাউন্সিল এর ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

অসম শিক্ষা মন্ত্রকের দাবি, রাজ্যের বিশিষ্ট ব্যক্তি এবং শিক্ষকদের সঙ্গে আলোচনা করেই এই বিশেষ চ্যাপ্টারগুলো বাদ দিয়েছে সরকার। সর্ব ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবর অনুযায়ী, স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে ভারতের প্রতি নেহেরু এবং কংগ্রেস দলের অবদান থেকে শুরু করে শিখ দাঙ্গা গুজরাট দাঙ্গার সমস্ত অধ্যায় মুছে ফেলা হচ্ছে সিলেবাস থেকে। এমনকি অযোধ্যা বিবাদ নিয়ে যে অংশটুকু ছিল সেটাও সিলেবাস থেকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা পরিষদ। ২০২০-২১ সালের শিক্ষাবর্ষে পড়ুয়াদের মাথার ওপর যাতে কম চাপ তৈরি হয় এবং তারা যেন সহজে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেন সেই কথা মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে সরকার।

এই ঘটনা নিয়ে ইতিমধ্যে রাজনৈতিক টানাপোড়েন শুরু হয়েছে বিরোধীদের মধ্যে। পড়ুয়াদের ইতিহাস সম্পর্কে অজ্ঞত রেখে তাদের আরও অন্ধকারে সরকার ফেলে দিতে চাইছে বলে দাবি করেছে কংগ্রেস। অন্যদিকে বিজেপি এই দাবি সরাসরি নস্যাৎ করে দিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here