mamata

মহানগর ওয়েবডেস্ক: সকালেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে ভিডিও কনফারেন্সে বৈঠক করেন একাধিক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও উপস্থিত ছিলেন সেই বৈঠকে। বিকেলে সেই বৈঠক নিয়ে প্রশ্ন করা হলে অসন্তোষ ঝরে পড়ে মুখ্যমন্ত্রীর গলা থেকে। কথা বলার সুযোগ না পাওয়ার পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে আর্থিক সাহায্য না করারও অভিযোগ তোলেন মমতা।

লকডাউন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা হয়েছে কিনা জানতে চাওয়া হলে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা শুধু শুনেছি তিন ঘন্টা বসেছিলাম। আমাদের কোনো কথাই বলতে দেয়নি। শুধু বোবার মতো বসেছিলাম। লকডাউন কতদিন চলবে তাও আমরা বুঝতে পারছি না। ভেবেছিলাম প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে পারব কিন্তু পারিনি। ভুল হলে রাজ্যের বদনাম করা হয়। কিন্তু ভালো কাজ করলে প্রশংসা করা হয় না। একটা সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে হলে তার ফল ভাবতে হয়।’ রাজ্য সরকার ২১ মে পর্যন্ত লকডাউন চালিয়ে যাওয়ার পক্ষপাতী বলে জানান তিনি। এই সময় পর্যন্ত সকলকে সাবধান থাকার পরামর্শও দেন। লকডাউনের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে মমতা বলেন, ‘আমরা আজকাল অপেক্ষা করবো পরশু সিদ্ধান্ত জানাবো। গ্রামে কিভাবে কাজ করা যায় তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’

কোভিড ১৯ চিকিৎসায় রাজ্য সরকার যা খরচ করছে তার সিকি ভাগও কেন্দ্রীয় সরকার দেয়নি বলে এদিন দাবি করেন মমতা। সরকারি তো রয়েইছে। পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালেও করোনা চিকিৎসার খরচ রাজ্য সরকারই বহন করছে। কিন্তু সাহায্যের বেলায় কিছুই পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন তিনি। একই সঙ্গে উদ্ভুত পরিস্থিতির মধ্যে কেন্দ্রীয় দল পাঠানোর যৌক্তিকতা নিয়েও সওয়াল তোলেন মুখ্যমন্ত্রী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here