kolkata bengali news

ডেস্ক: খবর ছড়িয়েছিল যে কাতারে রাফাল যুদ্ধবিমানের প্রশিক্ষণ ইতিমধ্যেই নিয়ে ফেলেছে পাকিস্তান বায়ুসেনার পাইলটরা। এমনকি ফান্সের মাটিতেও নাকি রাফাল উড়িয়েছে তারা। এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই ভারতের উদ্বেগ বাড়ে। যদিও এই খবরকে পুরোপুরি ভুয়ো বলে উড়িয়ে দিয়েছে ফ্রান্স সরকার। এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে ফরাসি দূতাবাসের তরফে জানানো হয়েছে,

ফ্রান্সের মাটিতে বা কাতারে পাকিস্তানি পাইলটদের রাফাল নিয়ে প্রশিক্ষণের খবর সম্পূর্ণ ভুল। জানানো হয়েছে, এই সংক্রান্ত সমস্ত খবর নিয়ে আলাদা তদন্ত চালানো হচ্ছে।

রাফাল নিয়ে ইতিমধ্যেই একটি খবর ছড়িয়েছিল যে, বেশ কয়েকজন পাকিস্তানি পাইলট কাতারে গিয়ে রাফাল যুদ্ধবিমান চালানোর প্রশিক্ষণ নিয়ে আসে! এই প্রশিক্ষণ নেওয়ার খবরে চাঞ্চল্য ছড়ায় ভারতীয় বায়ুসেনায়। বিশেষজ্ঞ মহলের ধারণা হয়, ইতিমধ্যেই যদি পাকিস্তান রাফাল নিয়ে ‘জ্ঞান’ অর্জন করে নেয় তবে ভারতের প্রতিরোধ করা তাদের পক্ষে অসম্ভব নয়। তবে ফ্রান্স সরকারের এই বিবৃতির পর উদ্বেগ কিছুটা হলেও কমেছে ভারতের। কাতার নিয়ে ফ্রান্সের বক্তব্য, কাতার এয়ার ফোর্সের হয়ে পাকিস্তানি পাইলটরা রাফাল ওড়াতে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন, এই রকম কোনও খবর তাঁদের কাছে নেই।

সূত্রের খবর, প্রায়ই পশ্চিম এশিয়ার দেশগুলিতে গিয়ে পাকিস্তান বায়ুসেনার পাইলটরা প্রশিক্ষণ নেন। তাদের সেনাবাহিনীর সঙ্গেও কাজ করে করে তারা। জানা যায়, ২০১৫ সালে কাতার দাসোর সঙ্গে রাফাল নিয়ে চুক্তি করে। চুক্তি অনুযায়ী, ২৪টি বিমান পাওয়ার কথা থাকলেও কাতার প্রথমে ৩টি বিমান হাতে পায়; ২০১৭ সালে। তখনই পাকিস্তান রাফালের প্রশিক্ষণ নিয়ে আসে বলে খবর।

উল্লেখ্য, একটি অনলাইন সংবাদমাধ্যমের রিপোর্টে বলা হয়, ২০১৭ সালের নভেম্বরে কাতারের হয়ে যে পাইলটরা রাফাল বিমান ওড়ানোর প্রশিক্ষণ পেয়েছেন, তাঁরা প্রত্যেকেই পাক বায়ুসেনার অফিসার। সেই রিপোর্টে আরও বলা হয়, যুদ্ধবিমান চালানোর জন্য প্রশিক্ষণ নিতেই কাতার থেকে ফ্রান্সে গিয়েছিল অন্য পাইলটদের একটি দল। সেই পাইলটদের মধ্যেই ছিল পাকিস্তানি পাইলটরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here