international news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: সম্প্রতি ট্রাম্প দাবি করেছিলেন, ইন্দো-চিন সীমান্তে উত্তেজনা নিয়ে নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে কথা হয়েছে তাঁর এবং দুই দেশের এই সংঘাত নিয়ে মেজাজ মোটেও ভালো নেই মোদীর। কিন্তু সূত্রের খবর, সাম্প্রতিক সময়ে ট্রাম্প ও মোদীর মধ্যে নাকি কোনও কথাই হয়নি। ফলে ট্রাম্পের দাবি কার্যত ‘মিথ্যা’ বলেই প্রমাণিত হল।

সরকারি সূত্রে খবর, ট্রাম্পের সঙ্গে মোদীর শেষবার ফোনে কথা হয়েছিল ৪ এপ্রিল, হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন নিয়ে। তারপর থেকে দুই রাষ্ট্রনেতার মধ্যে আর কোনও ফোনালাপই হয়নি। ফলে ট্রাম্প কীভাবে দাবি করলেন তাঁর সঙ্গে মোদীর কথা হয়েছে ইন্দো-চিন সম্পর্ক নিয়ে, তা বোধগম্য হচ্ছে না কারোরই।

উল্লেখ্য, মার্কিন সময় বৃহস্পতিবার ওভাল অফিসে তিনি বলেন, ‘ভারত ও চিনের মধ্যে বেশ বড় বিবাদ চলছে। দুই দেশেরই জনসংখ্যা প্রায় ১৪০ কোটি করে। দুই দেশেরই সেনাবাহিনী বেশ শক্তিশালী। ভারত খুশি নয়, হয়তো চিনও খুশি নয়। আমি প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে কথা বলেছি। চিনের সঙ্গে যা হচ্ছে তা নিয়ে ওনার মেজাজ মোটেও ভালো নেই।’

দুই দেশের মধ্যে মধ্যস্থতা নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার মধ্যস্থতা করতে কোনও সমস্যা নেই। যদি ভারত ও চিন চায়, তাহলে আমি মধ্যস্থতা করব।’ যদিও মোদীর সঙ্গে তাঁর কখন ফোনে কথা হয়েছে, সেই বিষয়ে কিছু বলেননি ট্রাম্প।

প্রসঙ্গত, বুধবার আমেরিকার রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন, ভারত ও চিনের মধ্যে চলতে থাকা সীমান্ত বিবাদ মেটাতে তিনি মধ্যস্থতা করতে তৈরী এবং এমনটা করতে তিনি সক্ষম। টুইটে তিনি লিখেছিলেন, ‘আমরা ভারত এবং চীন দুই দেশকেই জানিয়েছি যে আমেরিকা ওদের সীমান্ত বিভাগ নিয়ে মধ্যস্থতা করতে তৈরী এবং সক্ষম।’ যার প্রেক্ষিতে ভারতের তরফে বলা হয়, আমাদের সেনাবাহিনী বর্ডার ম্যানেজমেন্ট দায়িত্বের সঙ্গে পালন করেছে। একই সঙ্গে দুই দেশের মধ্যে তৈরি হওয়া বিবাদ দ্বিপাক্ষিক চুক্তির আওতায় এই দুই দেশই সমাধান করবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয়।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here