kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, বর্ধমান: লকডাউনের জেরে গভীর সঙ্কটের মুখে পড়লেন পশুপালকরা। বিশেষ করে যাঁদের জীবিকা গরু, মোষ প্রতিপালন করা। গোখাদ্য জোগাড় করা নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তাঁরা। ইতিমধ্যেই রাজ্য গাভী কল্যাণ সমিতির পক্ষ থেকে রাজ্য সরকারের কাছে এই সঙ্কট মোকাবিলার আবেদন জানানো হয়েছে। রাজ্যের গাভী কল্যাণ সমিতির সভাপতি বাপ্পাদিত্য ঘোষ জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাসের জেরে গোয়ালাদের দুধ সাধারণ মানুষ আর নিতে চাইছেন না। ফলে তাঁরা চরম আর্থিক সঙ্কটের মুখে পড়েছেন। এরই পাশাপাশি বিভিন্ন কোম্পানি যে সমস্ত দুধের সেণ্টারগুলি চালাচ্ছিল, সেগুলিও আস্তে আস্তে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই অনেক সেণ্টার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দুধের জোগান থাকলেও চাহিদা না থাকায় তা নষ্ট হচ্ছে।

বাপ্পাদিত্যবাবু আরও জানিয়েছেন, গোয়ালাদের অনেকেই প্রতিদিন এই দুধ বিক্রি করেই সংসার চালান। করোনার জেরে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে দুধের বিক্রি তলানিতে ঠেকে যাওয়ায় ভয়াবহ সঙ্কটের মুখে পড়েছেন তাঁরা। প্রতিদিন উৎপাদন হওয়া দুধ কোনও ভাবে সংরক্ষণ করে রাখা যায় না। ফলে চাহিদা না থাকার জন্য এখন রাজ্যে প্রচুর দুধ নষ্ট হচ্ছে। ফলে চূড়ান্ত ক্ষতির মুখে পড়েছেন গো-পালনের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা।

অন্যদিকে, গোখাদ্যের আমদানি আপাতত বন্ধ। এমন চলতে থাকলে অচিরেই গরু, মোষ খাবার না পেয়ে মরতে শুরু করবে। কারণ, দুধ বিক্রি না হলেও গবাদি পশুকে নিয়মিত খাবার জুগিয়ে যেতে হবে। গোখাদ্য মূলত বাইরে থেকে আসে এইরাজ্যে। গাড়ি বন্ধ থাকায় আপাতত আমদানি হচ্ছে না গোখাদ্য। তাই গবাদি পশুকে এখন বাঁচিয়ে রাখাই বড় চ্যালেঞ্জ। এব্যাপারে তাঁরা সংগঠনের পক্ষ থেকে রাজ্য সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছেন দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here