নিজস্ব প্রতিনিধি : শিয়ালদহ শিয়ালদহ স্টেশন লাগোয়া এলাকা থেকে আরও এক জালনোট পাচারকারীকে হাতেনাতে গ্রেফতার করল কলকাতা পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্স। ধৃতের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে দু লক্ষ টাকার জাল নোট। ধৃত হাবিবুর রহমান মালদা জেলার বৈষ্ণবনগর থানা এলাকার বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে। ধৃত ব্যক্তি মালদার অন্যতম বড় জাল নোট পাচার চক্রের অন্যতম পাণ্ডা বলে পুলিশ সূত্রে খবর।

গত ৯ই মার্চ শনিবার বউবাজার থানা এলাকার চাঁদনি চক থেকে কলকাতা পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের হাতে ধরা পড়ে দুজন জাল নোট পাচারকারী। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার হয় প্রায় ৮ লক্ষ টাকার জাল নোট। ধৃত দীপক মণ্ডল ও জয়দেব মণ্ডলও মালদা জেলার বৈষ্ণবনগর থানা এলাকারই বাসিন্দা। দীর্ঘদিন ধরেই জাল নোট পাচার চক্রের সঙ্গে তাঁরা জড়িত ছিল।

 

পুলিশ সূত্রে খবর, ধৃত দীপক মণ্ডল ওরফে ভোলাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে ওই জাল নোট চক্রের আরও এক পাণ্ডার কথা জানতে পারেন তদন্তকারী আধিকারিকরা। মাত্র ৯দিনের মাথায় সোমবার কলকাতার এন্টালি থানা এলাকার মৌলালির সিআইটি রোডের ওপর একটি পেট্রোল পাম্পের সামনে থেকে ওই জাল নোট চক্রের অন্যতম পান্ডা বছর চব্বিশের তোফাজুল হককে হাতেনাতে গ্রেফতার করে স্পেশাল টাস্ক ফোর্স। তার কাছ থেকেও উদ্ধার হয় ১০০টি দু হাজার টাকার জাল নোট। ধৃত ব্যক্তি তোফাজুলও মালদা জেলার হরিশ্চন্দ্রপুর থানা এলাকারই দৌলতপুর গ্রামের বাসিন্দা। দীপক ও জয়দেব মণ্ডলের সঙ্গে মিলে দীর্ঘদিন ধরেই মালদা থেকে এই জাল নোট চক্রেরটি চালাত বলে জেরায় জানায় ধৃত।

এরপরেই তোফাজুলকে লাগাতার জেরা করে হদিশ পাওয়া যায় এই চক্রের আরও এক পান্ডার। তাঁকে ধরতেই বুধবার শিয়ালদহ স্টেশনের কাছে সাদা পোশাকে ফাঁদ পেতেছিলেন এসটিএফের গোয়েন্দারা। রাত নটা পঁচিশ নাগাদ এসটিএফের জালে ধরা পড়ে হাবিবুর রহমান নামে এক ব্যক্তি। ধৃত হাবিবুর দীপক, জয়দেব ও তোফাজুলেএ সঙ্গে মালদার বৈষ্ণবনগর থেকে এই জাল নোট পাচার চক্রটি চালাত বলে স্বীকার করেছে পুলিশি জেরায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here