Parul

মহানগর ডেস্ক: ধর্ম ও দেশ নিয়ে আবারো বড় মন্তব্য করলেন আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত। এদিন আসামে একটি বই উদ্বোধনী সভায় ভাগবত এই মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, “ভারত সর্বদা বহিরাগতদের স্বাগত জানায়। নিজেদের ভাষা,খাদ্যাভ্যাস, ধর্ম অন্যের ওপর চাপিয়ে দেয়না। ১৯৩০ সালে মুসলিমদের সংখ্যা বৃদ্ধি করে দেশকে আরো বেশি করে পাকিস্তান বানানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। তাই কিছুটা হলেও ১৯৪৭ সালে দেশভাগ করে এই পরিকল্পনা আংশিক সফল হয়।”
তিনি আরো বলেন, “বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের সংখ্যালঘুদের এদেশে আনার ব্যবস্থা করার জন্যই সিএএ। বাইরে থেকে অবৈধভাবে ভারতে থাকা বেনাগরিকদের চিহ্নিত করতে এনআরসির খুব প্রয়োজন।”

ads

ভাগবতের বক্তব্য অনুযায়ী বর্তমানে সিএএ আর এনআরসি নিয়ে রাজনীতি হচ্ছে। এটি রাজনীতির একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়েছে। হিন্দু আর মুসলমানদের মধ্যে বিভেদ তৈরি করার চেষ্টা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত বিশ্বশর্মা। তিনিও তাঁর বক্তব্যকে সমর্থন জানিয়েছেন। সংখ্যালঘুদের ভোট ভাগ করে যারা নির্বাচন লড়েন তাদের এই দুটি আইনকে পরীক্ষা করে দেখার কথাও বলেছেন তিনি।

পাশাপশি পাকিস্তানকে তাদের সংখ্যালঘুদের প্রতি সঠিক আচরণ না করার জন্যও সমালোচনা করেন মোহন ভাগবত। ১৯৫০ সালের নেহেরু লিয়াকত চুক্তির উল্লেখ করে আরএসএস প্রধান বলেন, “১৯৫০ সালে নেহেরু লিয়াকত চুক্তিতে স্পষ্ট উল্লেখ করা হয়েছিল দুই দেশই তাদের সংখ্যালঘুদের প্রতি সঠিক নজর দেবে। ভারত সর্বদাই বহিরাগতদের স্বাগত জানিয়েছে। নিজেদের সংস্কৃতি, ধর্ম ভাষা অন্য কারো ওপর চাপিয়ে দেয়নি।” এনআরসি সিএএ সম্পর্কি একটি বই লিখেছেন গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ননীগোপাল মহন্ত। সেই বইয়ের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে গিয়েই এই সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে আশ্বস্ত করার বার্তা দিয়েছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here