kolkata news

Highlights

  • অসুস্থ হয়ে পড়লে ‘ভূতে ধরেছে’ সন্দেহে চলে ওঝার ঝাড়ফুঁক
  •  এক সময় নেতিয়ে পড়লে চার শিশুকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে
  • সেখানে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে

নিজস্ব প্রতিনিধি, মালদা: অসুস্থ হয়ে পড়লে ‘ভূতে ধরেছে’ সন্দেহে চলে ওঝার ঝাড়ফুঁক। আরও অসুস্থ হয়ে পড়ে শিশুরা। তবুও ওঝার কেরামতি চলতে থাকে। এক সময় নেতিয়ে পড়লে চার শিশুকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। সেখানে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। কু-সংস্কারের বলি হওয়ার এই ঘটনাটি ঘটেছে মালদার গাজোলের কদমতলা গ্রামে। মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি আছে আরও দুই অসুস্থ শিশু। তাদের অবস্থা সংকটজনক বলে জানা গিয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার বিকেলে কদমতলি এলাকায় চার শিশু খেলাধুলো করছিল। হঠাৎ চারজনের পেট ব্যথা শুরু হয়। পরিবারের লোকজন বাচ্চাদের ‘ভূতে ধরেছে’ অনুমান করে ওঝা ডেকে ঝাড়ফুঁক করতে থাকে। শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকলে কয়েকজন জোরপূর্বক রাত ১২টা নাগাদ তাদের মালদা মেডিক্যালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করান। কিন্তু, পথেই মৃত্যু হয় ফিরোজ হোসেন নামে এক শিশুর। ভোর তিনটে নাগাদ মালদা মেডিক্যালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় শফিকুল ইসলাম নামে আরও এক শিশুর। কোহিনুর ও শাবনুর খাতুন নামে দুই শিশু বর্তমানে মালদা মেডিক্যালে চিকিৎসাধীন।

কী করে ঘটল এই ঘটনা? এলাকার লোকজন প্রাথমিক ভাবে মনে করছেন, খেলার সময় বিষ জাতীয় কোনও ফল খেয়ে নেয় ওই শিশুরা। তার জেরে শুরু হয় বিষক্রিয়া। পেট ব্যথা হলেও তাদের হাসপাতালে না নিয়ে গিয়ে ‘ভূত’ ছাড়ানোর ব্যবস্থা করেন বাড়ির লোকজন। একটি বদ্ধ ঘরে ওই চার শিশুকে নিয়ে নিজের কেরামতি দেখাতে থাকে ওঝা। এই ভাবেই এক সময় নেতিয়ে পড়ে ওই চার শিশু।

সেই সময় কোহিনুর ও শাবনুর খাতুন নামে দুই শিশুর মামা রাত ১২টা নাগাদ তাদের হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু, ততক্ষণে বড় দেরি হয়ে যায়। হাসপাতালে যাওয়ার পথেই মৃত্যু হয় এক শিশুর। পরে হাসপাতালে মারা যায় আরও এক শিশু। বাকি দুই শিশু এখনও চিকিৎসাধীন। তাদের অবস্থা সংকটজনক বলে জানা গিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here