বাড়িতে ঢুকে লুঠপাট চালিয়ে খুন বৃদ্ধাকে, চাঞ্চল্য গুড়াপে

0
26

নিজস্ব প্রতিবেদক, চুঁচুড়া: মাঝরাতে একাকী বৃদ্ধার বাড়িতে ঢুকে লুঠপাট চালিয়ে তাঁকে খুন করল দুষ্কৃতীরা। হুগলি জেলার গুড়াপের গোপালপুর গ্রামে ঘটনাটি রবিবার রাতে ঘটলেও প্রকাশ্যে এসেছে সোমবার। পুলিশ জানায়, মৃতের নাম আনজুরা বেগম (৮০)। একটি টালির বাড়িতে তিনি একাই থাকতেন। তাঁর ঘরের আলমারির লকার ভাঙা ছিল। এমনকি দেহের পাশে ঘরের সমস্ত জিনিসপত্র, কাগজপত্র ছড়ানো-ছিটানো ছিল। পাশের ঘরগুলির তালাও ভাঙা ছিল। যা দেখে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে, দুষ্কৃতীরা লুঠপাট করতে এসেই আনজুরা বেগমকে খুন করেছে। শ্বাসরোধ করেই আনজুরা বেগমকে খুন করা হয়েছে বলে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান। ঘটনার তদন্তে দেহটি ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গোপালপুর গ্রামেরর মুসলিম পাড়ায় একটি টালির বাড়িতে আনজুরা বেগম একাই থাকতেন। তাঁর পাঁচ ছেলে কাজের সূত্রে বাইরে থাকেন। তবে বাড়ির পাশেই থাকেন ছোটো মেয়ে শরফুন্নেসা খাতুন। এদিন সকালে শরফুন্নেসা মাকে দেখতে এসে দেখেন, বেলা হয়ে গেলেও সদর দরজা ভিতর থেকে বন্ধ। অনেক ডাকাডাকি করেও মায়ের সাড়া না পেয়ে তিনি প্রতিবেশীদের খবর দেন। তারপর এলাকাবাসীর সাহায্যে সদর দরজা খুলে বাড়ির ভিতরে ঢোকেন শরফুন্নেসা। ঘরে ঢুকতেই তাঁর চক্ষু চড়কগাছ হয়ে যায়। তিনি দেখেন, ঘরের মেঝেতে পড়ে রয়েছে আনজুরা বেগমের নিথর দেহ। তাঁর দেহের পাশে ঘরের সমস্ত জিনিস, কাগজপত্র ছড়ানো-ছিটানো রয়েছে। আলমারিও খোলা। বিছানাও লণ্ডভণ্ড হয়ে রয়েছে। এমনকি আনজুরা বেগমের ছেলেদের ঘরেরও তালা ভাঙা। রাতে কেউ যে ঘরের ভিতর ঢুকে লুঠপাট চালিয়েছে, সে বিষয়ে সন্দেহ নেই। শরফুন্নিসার কথায়, ‘ঘরে লুঠপাটের চিহ্ন স্পষ্ট। আলমারির লকার ভাঙ্গা হয়েছে। সোনার বালা, সোনার দুল, সোনার হার সহ মায়ের সমস্ত গয়না গায়েব।’

দুষ্কৃতীরা লুঠপাট করতে এলেও আনজুরা বেগমকে কেন খুন করা হল, তা স্পষ্ট নয়। পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, দুষ্কৃতীদের লুঠপাটে বাধা দেওয়ার কারণেই খুন হয়েছেন আনজুরা বেগম। বালিশ দিয়ে শ্বাসরোধ করে তাঁকে খুন করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে এলেই পুরো ঘটনা স্পষ্ট হবে বলে গুড়াপ থানার পুলিশ জানিয়েছে। দুষ্কৃতীদের খোঁজে তদন্তও শুরু হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here