রাহুল গান্ধী

মহানগর ডেস্ক: ‘কেরলে কুস্তি আর বাংলায় দোস্তি’ এই প্রশ্নবাণে কংগ্রেসকে একাধিকবার বিদ্ধ করেছেন বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্বরা। পাঁচ রাজ্যের নির্বাচনে কেরল, অসম, তামিলনাড়ুতে একাধিকবার প্রচারে গেলেও বাংলায় প্রচারে দেখা যায়নি কংগ্রেসের প্রথম সারির কোনও বড় নেতা-নেত্রীকে। অবশ্য এই নিয়ে চর্চাও কম হয়নি রাজনৈতিক মহলে। কেরলে বামেদের সঙ্গে কংগ্রেসের সম্পর্ক যেমনই থাকুক না কেন, সেই সমস্ত প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে বাংলায় ভোট প্রচারে ঝাঁপিয়ে পড়তে চলেছেন সোনিয়া পুত্র রাহুল গান্ধী। বাংলায় শেষ মুহূর্তের প্রচারে রাহুলকে দেখা গেলেও দোলাচলে রয়েছেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী।

কংগ্রেস সূত্রের খবর, আগামী ১৪ তারিখ পনচম দফার প্রচারের জন্য বাংলায় ভোট প্রচারে আসতে চলেছেন রাহুল গান্ধী। প্রথম জনসভাটি তিনি করবেন উত্তর দিনাজপুরের গোয়ালপোখরে। দ্বিতীয় সভাটি করবেন মাটিগাড়া-নকশালবাড়িতে। এই দুটি কেন্দ্রই কংগ্রেসের খাস তালুক হিসাবেই পরিচিত। একসময় প্রয়াত কংগ্রেস নেতা প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সির শক্ত ঘাঁটি ছিল এই উত্তর দিনাজপুর। সেই সূত্রে ধরে প্রয়াত কংগ্রেস নেতার স্ত্রী দীপা দাসমুন্সির রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের জেরে এই জেলায় এখনও কংগ্রেসের যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে বলেই ধারণা রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের। সূত্রের খবর, রাহুলের সভায় সংযুক্ত মোর্চার শীর্ষ নেতাদের থাকার জন্য অনুরোধ করেছে কংগ্রেস। পাশাপাশি সপ্তম ও শেষ দফার প্রচারে মালদা ও মুর্শিদাবাদে রাহুল গান্ধী আসতে পারেন বলে কানাঘুষো হচ্ছে।

উল্লেখ্য, কেরলে কংগ্রেসের প্রধান প্রতিপক্ষ হল বামেরা। কিছুদিন আগেই কেরলে ভোট প্রচারে গিয়ে রাহুল গান্ধী বলেছিলেন, রাম-বাম জোট হয়েছে। এদিকে বাংলায় ‘শত্রু’ বামেদের সঙ্গেই জোট বেঁধেছে কংগ্রেস। কংগ্রেসের এই ‘দ্বিচারিতা’ নিয়ে সোনিয়া-রাহুলকে একাধিকবার আক্রমণ শানিয়েছে বিজেপি। অন্যদিকে ২৮শে ফেব্রুয়ারি জোটের ব্রিগেডের সভায় দেখা যায়নি কংগ্রেসের কোনও শীর্ষ নেতৃত্বকে। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মতে, যতদিন কেরল ভোট চলছিল, ততদিন বাম নেতাদের সঙ্গে একই মঞ্চে থাকতে চাইছিলেন না কংগ্রেসের কোনও শীর্ষ নেতারা। কেরলে ভোট মিটতেই এবার বাংলায় আসছেন রাহুল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here